Recent General Knowledge in University Admission Tests Part 05

0
10
Recent General Knowledge in University Admission Tests Part 05
Recent General Knowledge in University Admission Tests Part 05

আজ, আপনাদের কাছে Recent General Knowledge in University Admission Tests or বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষায় সাম্প্রতিক সাধারণ জ্ঞান নিয়ে হাজির হয়েছি । Admission পরীক্ষা নিয়ে চিন্তা করে না এমন লোক খুব কমই আছে। আজকে আমরা Admission Test এর গুরুত্বপূর্ণ বিষয় Recent General Knowledge বিষয়ের Part 05 নিয়ে আলোচনা করবো। Recent General Knowledge in University Admission Tests Part 05

Recent General Knowledge in University Admission Tests PART 05

বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষায় সাম্প্রতিক সাধারণ জ্ঞান

What is the meaning of admission test? ⇒ a test to see if someone should be admitted to a institute.
What is admission system? ⇒ The admission management system is a digital tool that helps educational institutions manage the student enrollment process effortlessly. It lets admission teams capture student inquiries, check their eligibility, follow-up, collect documents, and complete the application process digitally.

To do well in an admissions test, you need to prepare properly – so start by reading our ten top tips:

1. Check which test your course requires
2. Confirm key dates and deadlines
3. Get to know the test specification
4. Plan your preparation
5. Use the free preparation resources
6. Prepare effectively
7. Prepare using past paper questions 
8. Practise under timed exam conditions
9. Check what you need for the test
10. And finally – try to stay calm and positive on the test day

Admission test schedule for session 2021-2022 of all government or public university in Bangladesh will be available here. You would get here admission circular, application starting and dead line, admission test routine, application process and instruction’s link, admission related update notice and many more. Over 290,000 students have submitted their applications for admission into Dhaka University’s first year honours under the session of 2021-2022.

EveryOne are invited to inform about update news by comments in below.

[বি.দ্রঃ নিচের সকল তথ্য এর প্রকাশকালঃ ১ মে, ২০২২]

সাম্প্রতিক বাংলাদেশ বিষয়াবলি

◊ দেশের ষষ্ঠ জনশুমারি ও গৃহগণনা কবে অনুষ্ঠিত হবে ? উ: ১৫-২১ জুন, ২০২২ [এ বছর প্রথমবারের মতো ডিজিটাল পদ্ধতিতে জনশুমারি ও গৃহগণনা হবে]।
◊ বর্তমানে দেশে নদীবন্দর কয়টি ? উ: ৩৭ টি [সর্বশেষ নদীবন্দর হচ্ছে- গাজীপুর নদীবন্দর]।
◊ দেশে বর্তমানে পানি সরবরাহ ও পয়ঃনিষ্কাশন কর্তৃপক্ষ বা ওয়াসা কয়টি ? উ: ৫ টি [সর্বশেষ সিলেট ওয়াসা]।
◊ দেশের সবচেয়ে বড় বায়ুবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোথায় স্থাপিত হবে ? উ: কক্সবাজারে।
◊ দেশের একমাত্র পাথরখনি কোথায় অবস্থিত ? উ: দিনাজপুরের মধ্যপাড়ায়।
◊ রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ শিল্পকলা একাডেমি ও আঞ্চলিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র কোথায় নির্মাণ করা হবে ? উ: কিশোরগঞ্জের মিঠামইনে।
◊ ‘বাংলাদেশ পেটেন্ট আইন, ২০২১’ অনুযায়ী, বর্তমানে পেটেন্ট মালিকের স্বত্ব কত বছরের জন্য সংরক্ষিত ? উ: ২০ বছর।
◊ সম্প্রতি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কোন স্বীকৃতি লাভ করেন ? উ: টিকা চ্যাম্পিয়ন।
◊ সম্প্রতি প্রথমবারের মতো কোন উপজাতিদের ভাষার বাংলা অভিধানের মোড়ক উম্মোচন করা হয় ? উ: মারমা [মারমা ভাষায় প্রথম চলচ্চিত্রের নাম ‘তৎম্মাসে’ (গিরিকন্যা)।]।
◊ শেখ রাসেল সেনানিবাস কোথায় অবস্থিত ? উ: শরীয়তপুরের জাজিরায়।
◊ সম্প্রতি দেশে শিল্পনীতি প্রণয়ন করা হয় ? জাতীয় শিল্পনীতি ২০২২।
◊ মুজিববর্ষের নতুন সময়কাল কখন ? উ: ১৭ মার্চ, ২০২০ থেকে ৩১ মার্চ, ২০২২ পর্যন্ত সময়কাল [করোনার কারণে বৃদ্ধি করা হয়েছে]।
◊ এ পর্যন্ত অসমাপ্ত আত্মজীবনী প্রকাশ পেয়েছে- ১৮ টি ভাষায় (বাংলা, ইংরেজি, হিন্দি, উর্দু, জাপানি, চৈনিক, আরবি, ফরাসি, তুর্কি, স্প্যানিশ, অসমীয়া, নেপালি, রুশ, ইতালিয়ান, মালয় মারাঠি, কোরিয়ান এবং গ্রিক)। মনে রাখতে হবে, অনূদিত হয়- ১৭ টি ভাষায়। গ্রন্থটি সর্বশেষ গ্রিক ভাষায় অনূদিত হয়।
◊ দেশের বর্তমানে ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) পণ্য কয়টি ? উ: ৯ টি [১. জামদানি, ২. ইলিশ, ৩. ক্ষীরশাপাতি, ৪. ঢাকাই মসলিন, ৫. রাজশাহীর সিল্ক, ৬. শতরঞ্জি, ৭. চিনিগুঁড়া চাল, ৮. দিনাজপুরের কাটারিভোগ এবং ৯. বিজয়পুরের সাদা মাটি (বাংলাদেশের প্রথম জিআই পণ্য জামদানি শাড়ী সনদ লাভ করে ১৭ নভেম্বর , ২০১৬ এবং রাজশাহীর ফজলি আম ও বাংলাদেশের বাগদা চিংড়ি খুব তাড়াতাড়ি জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি পেতে যাচ্ছে)]।
◊ বর্তমানে দেশে ইলিশের অভয়াশ্রম কতটি ? উ: ৬ টি।
◊ সম্প্রতি বোরো মৌসুমে চাষের জন্য ধানের ১০ টি নতুন জাত অনুমোদন দেয় কোন প্রতিষ্ঠান ? উ: জাতীয় বীজ বোর্ড।
◊ বাংলাদেশে বর্তমানে মাথাপিছু আয় কত ? ২৫৯১ মার্কিন ডলার [বিবিএস -২০২২]।
◊ বর্তমানে জিডিপি’র ভিত্তি বছর কোনটি ? উ: ২০১৫-১৬ অর্থ বছর।
◊ ২০৫০ সালে বাংলাদেশ বিশ্বের কততম বৃহৎ অর্থনীতির দেশ হবে ? উ: ২৩ তম।
◊ সম্প্রতি বাংলাদেশের অর্থনীতির আকার কোন মাইলফলকে পৌছে ? উ: এক ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার।
◊ সম্প্রতি কে বাংলাদেশে ব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ পদে নিয়োগ লাভ করেন ? উ: মো. হাবিবুর রহমান।
◊ সম্প্রতি কোন দেশের বাজেটে বাংলাদেশের জন্য অর্থ বরাদ্দ রাখা হয় ? উ: ভারতের [ভারতের পার্লামেন্টে ২০২২-২৩ সালের বাজেট পেশ করেন নির্মলা সীতারমন। এ বাজেটে বাংলাদেশের জন্য ৩০০ কোটি রুপি বরাদ্দ রাখা হয়।]।
◊ বাংলাদেশ কবে Least Developed Country (LDC) থেকে বের হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ? উ: ২০২৬ সালে (যুক্ত হয় ১৯৭৫ সালে)।
◊ স্বল্পোন্নত দেশের তালিকা থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের সব শর্ত পূরণ করে ? উ: ২০১৮ সালে।
◊ সম্প্রতি বাংলাদেশের কোন স্থানকে জীববৈচিত্র্য রক্ষা ও জলবায়ু পরিবর্তন রোধ করার লক্ষ্যে ‘মেরিন প্রটেক্টেড এরিয়া’ ঘোষণা করা হয় ? উ: টেকনাফ উপজেলাধীন সেন্টমার্টিন দ্বীপ সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরের ১৭৪৩ বর্গ কি.মি এলাকা।
◊ বাংলাদেশে কবে প্রথমবারের মতো ভার্চুয়াল জাদুঘর চালু হয় ? উ: ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২২।
◊ বাংলাদেশে প্রথম কোন মোবাইল কোম্পানি ই-সিম চালু করে ? উ: গ্রামীণফোন।
◊ সম্প্রতি বাংলাদেশের যে সংস্থাটি সুবর্নজয়ন্তী পালন করে ? উ: ব্র্যাক [২১ মার্চ, ১৯৭২ সালে ফজলে হাসান আবেদ সংস্থাটি প্রতিষ্ঠা করেন]।
◊ দেশে নতুন কয়টি সরকারি ইপিজেড (রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল) নির্মাণের প্রস্তাব করা হয়েছে ? উ: ৩ টি [এ ইপিজিড তিনটি হবে গাইবান্ধা, যশোর ও পটুয়াখালীতে। দেশে বর্তমানে সরকারি ইপিজেড এর সংখ্যা ৮ টি।]।
◊ দেশের শেয়ার বাজারে প্রথমবারের মতো শরিয়াহ্ভিত্তিক বন্ড চালু করে কোন প্রতিষ্ঠান ? উ: বেক্সিমকো।
◊ সম্প্রতি বঙ্গোপসাগরের মহীসোপানে কী পরিমাণ গ্যাসের সন্ধান পাওয়া গেছে ? উ: ন্যূনতম ১৭ থেকে ১০৩ ট্রিলিয়ন কিউবিক ফিট মিথেন গ্যাস (হাইড্রেটস)।
◊ সম্প্রতি বাপেক্স কোথায় প্রাকৃতিক গ্যাসের সন্ধান পেয়েছে ? উ: শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলায়।
◊ নতুন প্রজন্মের আর্থিক চাহিদা পূরণে ‘ডিজিটাল ব্যাংক’ চালুর উদ্যোগ নিয়েছে বেসরকারি খাতের প্রতিষ্ঠান ‘ব্যাংক এশিয়া’।
◊ স্বাধীনতার ৫০ বছর উপলক্ষে ২০২১ সালকে ঘোষণা করা হয়েছে- ‘পর্যটন বর্ষ’।
◊ বাংলাদেশের নবনিযুক্ত প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে ? উ: অবসরপ্রাপ্ত সিনিয়র সচিব কাজী হাবিবুল আউয়াল (তিনি ১৩ তম প্রধান নির্বাচন কমিশনার। এ নির্বাচন কমিশনের অধীনে ১২ তম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।)
◊ স্বাধীনতার পর দেশে প্রথম ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ আইন -২০২২’ কবে হয় ? উ: ২৯ জানুয়ারি, ২০২২।
◊ বর্তমানে দেশে ভোটার সংখ্যা কত ? উ: ১১,৩২,৮৭,০১০ জন [সর্বশেষ ২ মার্চ, ২০২২ এ ভোটার তালিকা প্রকাশ করে নির্বাচন কমিশন]।
◊ সর্বসম্মতিক্রমে বাংলাদেশ কোন মেয়াদে জাতিসংঘ সামাজিক উন্নয়ন কমিশনের সদস্য নির্বাচিত হয়েছে ? উ: ২০২৩-২৭ মেয়াদে [বাংলাদেশ ছাড়াও এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চল থেকে ভারত ও সৌদি আরব নির্বাচিত হয়েছে]।
◊ ২০২২ সালের জন্য ইউএন উইমেন নির্বাহী বোর্ডের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন কে ? উ: বাংলাদেশের রাবাব ফাতিমা [তিনি বর্তমানে জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি হিসেবেও কাজ করছেন]।
◊ সাম্প্রতিক সময়ে কোন বাংলাদেশি ‘অর্ডার অব দ্য ব্রিটিশ এম্পায়ার’ এ ভূষিত হয়েছেন ? উ: অধ্যাপক সালিমুল হক [তিনি জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের স্বীকৃতি হিসেবে এ সম্মানে ভূষিত হন]।
◊ সম্প্রতি প্রথম বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত হিসেবে কে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল বিচারপতি নির্বাচিত হয়েছেন ? উ: নুসরাত জাহান চৌধুরী [তিনি প্রথম নারী মুসলিম আমেরিকান ফেডারেল সভাপতি]।
◊ দ্বিতীয় বাংলাদেশি হিসেবে কে বহুপাক্ষিক বিনিয়োগ গ্যারান্টি সংস্থার ভাইস প্রেসিডেন্ট (অপারেশন্স) পদে নিয়োগ পেয়েছেন ? উ: জুনায়েদ কামাল আহমেদ [প্রথম বাংলাদেশি ফয়সাল কামাল আহমেদ চৌধুরী]।
◊ ২০২২ সালে পঞ্চম বাংলাদেশি হিসেবে আন্তর্জাতিক সাহসী নারী পুরস্কার লাভ করেন কে ? উ: সৈয়দ রিজওয়ানা হাসান [সৈয়দ রিজওয়ানা হাসান ‘বাংলাদেশ পরিবেশ আইনজীবী সমিতি (বেলা)’ প্রধান নির্বাহী। তিনি পরিবেশ ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর মর্যাদা ও অধিকার রক্ষায় অবদান রাখায় এ পুরস্কার লাভ করেন। ২০২২ সালে মোট ১২ জন এ পুরস্কার লাভ করেন।]।
◊ বাংলাদেশ কবে শতভাগ বিদ্যুতায়িত হয় ? উ: ২১ মার্চ, ২০২২।
◊ বর্তমানে দেশে কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র চালু আছে- ২ টি (বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র, দিনাজপুর এবং পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্ৰ, পটুয়াখালী)।
◊ দেশের প্রথম বেসরকারি বিটুমিন প্ল্যান্টের নাম- বসুন্ধরা বিটুমিন প্ল্যান্ট (কেরানীগঞ্জ)।
◊ প্রস্তাবিত ২০০ মেগাওয়াটের সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মিত হবে- পটুয়াখালীর পায়রায়।
◊ নির্মাণাধীন রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র কোন মন্ত্রণালয়ের অধীন ? উ: বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রনালয়।
◊ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার -২০২০ বিজয়ী সেরা চলচ্চিত্র কোনটি ? উ: ‘গোর’ এবং ‘বিশ্বসুন্দরী’ যৌথভাবে এ পুরস্কার লাভ করে।
◊ এশিয়ার নোবেল খ্যাত র্যামন ম্যাগসেসে পুরস্কার ২০২১ পেয়েছেন কোন বাংলাদেশি ? উ: ড. ফেরদৌসী কাদরী [তিনি আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশের (আইসিডিডিআর, বি) জ্যেষ্ঠ বিজ্ঞানী। এ ছাড়াও এ বছর পাকিস্তানের মুহাম্মদ আমজাদ সাদিক, ফিলিপাইনের রবার্তো ব্যালন, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার স্টিভেন মানসি ও ইন্দোনেশিয়ার প্রতিষ্ঠান ওয়াচডক এ পুরস্কার লাভ করেছেন। কলেরার টিকা নিয়ে গবেষণা ও সাশ্রয়ী দামে টিকা সহজলভ্য করে লাখো প্রাণ রক্ষায় অবদান রাখায় ড. ফেরদৌসী কাদরী এ পুরস্কার লাভ]।
◊ ১২ তম প্রমিলা ক্রিকেট বিশ্বকাপ বিজয়ী দল কোনটি ? উ: অস্ট্রেলিয়া [১২ তম প্রমিলা ক্রিকেট বিশ্বকাপ ৪ মার্চ- ৩ এপ্রিল, ২০২২ নিউজিল্যান্ডে অনুষ্ঠিত হয়। এতে অংশ নেয় ৮ টি দল। এতে বিজয়ী হয় অস্ট্রেলিয়া এবং রানারআপ হয় ইংল্যান্ড। এ বিশ্বকাপে বাংলাদেশ মহিলা ক্রিকেট দল প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ খেলে। প্রমিলা ক্রিকেট বিশ্বকাপে বাংলাদেশের প্রথম ও একমাত্র হয় পাকিস্তানের বিপক্ষে (৯ রানে)। এ ম্যাচে ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার পান বাংলাদেশেরফাহিমা খাতুন।]।
◊ বাংলাদেশ এ পর্যন্ত কতটি ওয়ানডে সিরিজে জয়লাভ করেছে ? উ: ২৯ টি [বাংলাদেশ প্রথম দ্বিপক্ষীয় সিরিজ খেলে ১৯৯৯ সালে। বাংলাদেশ এ পর্যন্ত ওয়ানডে সিরিজ খেলে ৮০ টি।]।
◊ দেশের প্রথম ক্রীড়া কমপ্লেক্স হচ্ছে- শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রীড়া কমপ্লেক্স, কক্সবাজার।
◊ ২০২১ সালের সাফ অনুর্ধ -১৯ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ কোথায় অনুষ্ঠিত হয় ? উ: বাংলাদেশে [এ আয়োজনে ফাইনালে মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ বনাম ভারত। ভারতকে ১ গোলে পরাজিত করে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে। আর এ জয়সূচক গোলটি করে বাংলাদেশের আনাই মগিনি।]।
◊ বাংলাদেশ এ পর্যন্ত দেশের বাইরে কয়টি ওয়ানডে সিরিজে জয়লাভ করে ? উ: ৭ টি [সর্বশেষ দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে]।
◊ বাংলাদেশে প্রথম ৫-জি পরীক্ষামূলকভাবে চালু হয় কবে ? উ: ১২ ডিসেম্বর, ২০২১ [মোবাইল অপরারেটর টেলিটক এ উচ্চসতির সেবা চালু করে]।
◊ বঙ্গবন্ধু স্যালেলাইট-২ উৎক্ষেপণে বাংলাদেশ কার সাথে সমঝোতা স্বাক্ষর স্বাক্ষর করেছে ? উ: রুশ প্রতিষ্ঠান গ্রুভকসমস এর সাথে।
◊ ২৮ অক্টোবর ২০২১ ফেসবুকের মূল প্রতিষ্ঠানের নতুন কি নামকরণ করে ? উ: Meta. [এ নামকরণটির মেটা শব্দটি গ্রিক শব্দ থেকে এসেছে।]
◊ চীনের প্রথম নারী হিসেবে মহাকাশে হাঁটেন কে ? উ: ওয়াং ইয়াপিং [বিশ্বের প্রথম নারী হিসেবে মহাকাশে হাঁটেন রাশিয়ার ভেতলানা সাতিসকায়া]।
◊ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটার কিনতে যাচ্ছে কোন ধনকুবের ? উ: ইলন মাস্ক।
◊ ‘জয় বাংলা’কে বাংলাদেশের জাতীয় স্লোগান করার গেজেট প্রকাশিত হয় কবে ? উ: ২ মার্চ, ২০২২ [হাইকোর্ট ‘জয় বাংলা’ -কে রাষ্ট্রের সর্বস্তরের জাতীয় স্লোগান হিসেবে ব্যবহারের অভিমত দেয় ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯। এরপর ১০ মার্চ, ২০২০ ‘জয় বাংলা’কে জাতীয় স্লোগান ঘোষণা করে। হাইকোর্টে রিট করা হয় ২০১৭ সালে]।
◊ সম্প্রতি (৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২২) ১৯৭১ সালে বাঙালিদের ওপর পাকিস্তানিদের নির্মম হত্যাযজ্ঞকে গণহত্যা হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে কোন আন্তর্জাতিক সংস্থা ? উ: জেনোসাইড ওয়াচ।
◊ সাম্প্রতিক সময়ে একাত্তরের গণহত্যাকে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দিয়েছে কোন প্রতিষ্ঠান ? উ: মার্কিন গবেষণা প্রতিষ্ঠান ‘লেমকিন ইনস্টিটিউট’।
◊ ‘সং অব বাংলাদেশ’ গানটির সুরকার ও গায়ক কে ? উ: মার্কিন ফোক গায়িকা ও সমাজকর্মী জোয়ান বায়েজ [১৯৭১ সালে গানটি ‘দ্য স্টোরি অব বাংলাদেশ’ নামে গাওয়া হয়। সম্প্রতি এ গানটির স্বত্ব মুক্তিযুদ্ধ আদুঘরকে প্রদান করা হয়]
◊ সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশের যে প্রতিষ্ঠানটির ৭০ বছর পূর্তি উদযাপন করা হয় ? উ: এশিয়াটিক সোসাইটি অব বাংলাদেশ [১৭৮৪ সালে ‘দি এশিয়াটিক সোসাইটি’ নামে প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৭২ সালে এটির নাম পরিবর্তন করে এশিয়াটিক সোসাইটি অব বাংলাদেশ করা হয়। এ প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠার ধারণা দেন স্যার উইলিয়ামস]।

জেলা পরিষদ নির্বাচন -২০২২

◊ স্বাধীন বাংলাদেশে কবে সর্বপ্রথম জলা বোর্ড গঠিত হয় ? উ: ১৯৭২ সালে [রাষ্ট্রপতির ৭ নং অধ্যাদেশ জারির মাধ্যমে]।
◊ জেলা বোর্ডকে জেলা পরিষদ নামকরণ করা হয় কখন ? উ: ১৯৭৬ সালে।
◊ সর্বপ্রথম কখন জেলা পরিষদ আইন হয় ? উ: ১৯৮৮ সালে (২০০০ সালে এ আইনটি পরিবর্তন করা হয়।)।
◊ বাংলাদেশে প্রথম জেলা পরিষদ নির্বাচন কখন অনুষ্ঠিত হয় ? উ: ২৯ ডিসেম্বর, ২০১৬ [জেলা পরিষদ আইনন -২০০০ অনুযায়ী]
◊ জেলা পরিষদ আইন -২০২২ এর মূল বিষয়গুলো কী ? উ: প্রশাসক নিয়োগের বিধান এবং জেলা পরিষদের সদস্য সংখ্যার সংস্কার [সাম্প্রতিক সময়ে পাস হওয়া আইন অনুযায়ী, জেলা পরিষদের সদস্য নির্ধারণ হবে উপজেলার সংখ্যার ভিত্তিতে]।
◊ স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা কয় স্তর বিশিষ্ট ? উ: ৩ [জেলা পরিষদ, উপজেলা পরিষদ এবং ইউনিয়ন পরিষদ। সর্বোচ্চ স্তর হচ্ছে জেলা পরিষদ আর সর্বনিম্ন স্তর হচ্ছে ইউনিয়ন পরিষদ]।

সাবেক রাষ্ট্রপতি সাহাবুদ্দিন আহমেদ

◊ জন্ম: ১ ফেব্রুয়ারি, ১৯৩০ (নেত্রকোণা জেলার কেন্দুয়া উপজেলার পেমই গ্রামে)।
◊ শিক্ষা: তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি (স্নাতক) এবং আন্তর্জাতিক সম্পর্ক (স্নাতকোত্তর) ডিগ্রি লাভ করেন।
◊ কর্মজীবন: ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। তিনি সুপ্রিম কোর্টের (ষষ্ঠ) প্রধান বিচারপতি ছিলেন। তিনি ১৯৯৬-২০০১ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করেন।
◊ মৃত্যু: ১৯ মার্চ, ২০২২ তিনি মারা যান।

স্বাধীনতা পুরস্কার ২০২২

অবদান পুরস্কারপ্রাপ্ত
◊ বীর মুক্তিযোদ্ধা ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরী, শহীদ কর্নেল খন্দকার নাজমুল
হুদা (বীর বিক্রম), আব্দুল জলিল, সিরাজ উদ্দিন আহমেদ, মোহাম্মদ ছহিউদ্দিন
বিশ্বাস (মরণোত্তর), সিরাজুল হক (মরণোত্তর) স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধ
◊ অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া, অধ্যাপক ডা. মো. কামরুল ইসলাম চিকিৎসাবিদ্যা
◊ স্থপতি সৈয়দ মাইনুল হোসেন (মরণোত্তর) স্থাপত্য
◊ বাংলাদেশ গম ও ভুট্টা গবেষাণা ইনস্টিটিউট গবেষণা ও প্রশিক্ষণ
◊ বিদ্যুৎ বিভাগ দেশে শতভাগ বিদ্যুতায়ন
[মোট ৯ জন ব্যক্তি ও ২ টি প্রতিষ্ঠান এ বছর দেশের সর্বোচ্চ পুরস্কারটি লাভ করেন।]

সাম্প্রতিক আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি

◊ ইউক্রেন যুদ্ধে রাশিয়ার নতুন সেনা কমান্ডার কে ? উ: জেনারেল আলেক্সান্ডার ভরনিকভ।
◊ করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট XE প্রথমবারের মতো কোন দেশে শনাক্ত হয় ? উ: যুক্তরাজ্যে।
◊ সম্প্রতি কোন দেশে ইসলামী সভ্যতার জাদুঘরের উদ্বোধন করা হয় ? উ: তুরস্কে।
◊ সম্প্রতি কোন দেশে ‘ঐতিহাসিক কূটনৈতিক সম্মেলন’ অনুষ্ঠিত হয় ? উ: ইসরায়েল [২৭-২৮ মার্চ, ২০২২ অনুষ্ঠিত এ সম্মেলনে অংশ নেয় যুক্তরাষ্ট্র, বাহরাইন, সংযুক্ত আরব আমিরাত, মরক্কো ও ইসরায়েল]।
◊ সম্প্রতি কোন দেশে ‘প্রধানমন্ত্রীর সংগ্রহালয়’ বা প্রধানমন্ত্রী জাদুঘর উদ্বোধন করা হয় ? উ: ভারতে এলডিসি’ভুক্ত দেশ বা স্বল্পোন্নত দেশগুলো।
◊ বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা’র দেওয়া বাণিজ্য সুবিধার আওতায় কত শতাংশ শুল্কমুক্ত সুবিধা পায় ? উ: ৯৭%।
◊ সম্প্রতি কোন দেশটিতে আফিম চাষ নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে ? উ: আফগানিস্তান।
◊ সম্প্রতি কোন দেশটি তাদের পতাকা বদল করেছে ? উ: আফগানিস্তান।
◊ মার্কিন সুপ্রিম কোর্টের প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ নারী বিচারপতি কে ? উ: কেতানজি ব্রাউন জ্যাকসন।
◊ ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টের মেয়াদকাল কত বছর ? উ: ৫ বছর (পূর্বে ৭ বছর ছিল)।
◊ সম্প্রতি কোন দু’টি দেশ দেউলিয়া হয়েছে ? উ: লেবানন ও শ্রীলংকা।
◊ সম্প্রতি কোন দেশটিতে প্লাস্টিক ব্যাগ নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে ? উ: সংযুক্ত আরব আমিরাতে।
◊ ৩০ মার্চ, ২০২২ বিমসটেক -এর পঞ্চম সম্মেলন কোথায় অনুষ্ঠিত হয় ? উ: শ্রীলংকায় [ভার্চুয়াল]।
◊ ২৪ মার্চ, ২০২২ ন্যাটো -এর বিশেষ সম্মেলন কোথায় অনুষ্ঠিত হয় ? উ: বেলজিয়ামে [ভার্চুয়াল]।
◊ গণিতের নোবেলখ্যাত ‘অ্যাবেল’ পুরস্কার -২০২২ কে লাভ করেন ? উ: যুক্তরাষ্ট্রের গণিতবিদ ডেনিস পারনেল সালিভান।
◊ বাংলা একাডেমি রবীন্দ্র পুরস্কার -২০২১ কে লাভ করেন ? উ: বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান।
◊ ৯৪ তম অস্কার বা অ্যাকাডেমি পুরস্কার -২০২২ এ সেরা চলচ্চিত্র কোনটি ? উ: কোডা [অস্কারজয়ী প্রথম নারী পরিচালক ক্যাথরিন বিগেলো]।
◊ কুখ্যাত ‘গুয়ানতানামো বে’ কারাগারটি কোথায় অবস্থিত ? উ: যুক্তরাষ্ট্রে [সম্প্রতি এ কারাগারটি নির্মাণের ২০ বছর পূর্তি হয়। ২০০২ সালে এটি জর্জ ওয়াকার বুশের নির্দেশে কারাগারটি নির্মিত হয়]।
◊ যুক্তরাষ্ট্রে প্রথমবারের মতো ধাতব মুদ্রায় স্থান পাওয়া কৃষ্ণাঙ্গ নারী কে ? উ: প্রয়াত কৃষ্ণাঙ্গ নারী কবি ও অধিকারকর্মী মায়া অ্যাঞ্জেলু।
◊ সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্র মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে আফ্রিকার কয়টি দেশের শুল্কমুক্ত সুবিধা বাতিল করে ? উ: ৩ টি [দেশগুলো হলো ইথিওপিয়া, মালি ও গিনি]।
◊ পাকিস্তানের নতুন ও ২৩ তম প্রধানমন্ত্রী কে ? উ: শাহবাজ শরিফ।
◊ পাকিস্তান পার্লামেন্টের নতুন (২২ তম) স্পিকার কে ? উ: রাজা পারভেজ আশরাফ।
◊ কোন দেশের প্রধানমন্ত্রী একজন তারকা ক্রিকেটার ছিলেন ? উ: পাকিস্তান [পাকিস্তানের ২২ তম প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান একজন জনপ্রিয় ক্রিকেটার ছিলেন। তার রাজনৈতিক দলের নাম ‘তেহরিক ই-ইনসাফ’ (পিটিআই)]।
◊ সম্প্রতি যে দেশটিতে প্রথমবার জাতীয় নিরাপত্তা নীতি ঘোষণা করা হয় ? উ: পাকিস্তান।
◊ সম্প্রতি যে দেশটি ২৫ টি বহুমাত্রিক জে -১০ সি যুদ্ধবিমানের একটি পুরো স্কোয়াড্রন গঠন করে ? উ: পাকিস্তান [যুদ্ধবিমানগুলো পাকিস্তান-চীনে নির্মিত]।
◊ চীনে এক সম্ভানীতি কবে বাতিল করা হয় ? উ: ২০১৬ সালে [২০২১ সালে তিন সন্তাননীতি চালু করা হয়]।
◊ সম্প্রতি বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে কারা আদালতে আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স প্রসিকিউটর ব্যবহারের মাধ্যমে অপরাধীর অপরাধ প্রমাণের প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছে ? উ: চীন।
◊ সম্প্রতি কোন দেশটি বায়ুচালিত বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন করেছে ? উ: চীন।
◊ ভারতের নতুন সেনাপ্রধান কে ? উ: লেফটেন্যান্ট মনোজ পাণ্ডে [দায়িত্ব গ্রহণ ১ মে, ২০২২]।
◊ সম্প্রতি কোন দেশে তৈরি হচ্ছে এশিয়ার বৃহত্তম কার্বনশূন্য বিমানবন্দর ? উ: ভারতে।
◊ সাম্প্রতিক সময়ে কোন দেশের অর্থনীতিকে ‘ক্লাসিক টুইন ডেফিসিট ইকোনমি’ বলা হচ্ছে ? উ: শ্রীলংকা।
◊ একক দেশ হিসেবে শ্রীলংকাকে সবচেয়ে বেশি ঋণ দিয়েছে কোন দেশ ? উ: চীন।
◊ সম্প্রতি প্লাস্টিক বর্জ্য নিয়ে ঐতিহাসিক বৈঠক কোথায় অনুষ্ঠিত হয় ? উ: কেনিয়ার রাজধানী নাইরোবিতে [২৮ ফেব্রুয়ারি -২ মার্চ, ২০২২ এ বৈঠক চলে। এতে ১৭৫ টি দেশের প্রতিনিধিরা উপস্থিত হয়। ২০২৪ সালের মধ্যে একটি চুক্তির ভিত্তি তৈরিতে প্রস্তাব করা হয়। বর্তমানে ৯৪ টি দেশে পলিথিন ব্যবহার নিষিদ্ধ রয়েছে]।
◊ ইসলাম বিদ্বেষের অভিযোগে কাতার ও কুয়েতে সম্প্রতি কোন ছবিটি নিষিদ্ধ হয়েছে ? উ: বিস্ট।
◊ সম্প্রতি কোন দেশে ‘মিউজিয়াম অব ফিউচার’ উদ্বোধন করা হয় ? উ: দুবাই, সংযুক্ত আরব আমিরাত।
◊ ইসরায়েলের সুপ্রিম কোর্টে কে প্রথম স্থায়ী মুসলিম বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন ? উ: খালেদ কাবুব।
◊ সম্প্রতি কোন দেশের জনগণ সংবিধান সংশোধন করে পারমাণবিক অস্ত্র রাখার পক্ষে রায় দিয়েছে ? উ: বেলারুশ।
◊ সম্প্রতি কোন দেশটি পারমাণবিক সাবমেরিন ঘাঁটি নির্মাণ করেছে ? উ: অস্ট্রেলিয়া।
◊ সম্প্রতি কোন দেশ বিশ্বের বৃহত্তম হাইব্রিড বিদ্যুৎ প্রকল্প তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে ? উ: থাইল্যান্ড।
◊ সাম্প্রতিক সময়ে কোন দেশ তাদের তিনটি পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র বন্ধ করে দেয় ? উ: জার্মানি।
◊ সাম্প্রতিক সময়ে কোন ২ টি দেশ অর্থনৈতিক সংকটের কারণে দেউলিয়া হয়েছে : উ: শ্রীলংকা ও লেবানন।
◊ সম্প্রতি কবে রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের সিংহাসনারোহণের ৭০ বছর পূর্তি হয় ? উ: ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২২।
◊ ইন্দোনেশিয়ার নতুন রাজধানীর নাম কি ? উ: নুসানতারা [নুসানতারা বোর্নিও দ্বীপের কালিমানতানে অবস্থিত। ইন্দোনেশিয়ার পূর্বে রাজধানী ছিল জাকার্তা। জলবায়ুর পরিবর্তনের কারণে জাকার্তা ধীরে ধীরে জাভা সাগরে ডুবে যাচ্ছে।]।
◊ সম্প্রতি কোন দু’টি দেশের মধ্যে প্রতিরক্ষা চুক্তি হয়েছে ? উ: অস্ট্রেলিয়া ও জাপান।
◊ হন্ডুরাসের প্রথম নারী ও বর্তমান প্রেসিডেন্ট কে ? উ: শিওমারা কাস্ত্রো।
◊ সুইডেনের প্রথম নারী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী কে ? উ: ম্যাগডালেনা অ্যান্ডারসন।
◊ এনভাইরনমেন্ট জাস্টিস ফাউন্ডেশন এর মতে, ২০৫০ সালে সমুদ্রতল কতটা উচু হবে ? উ: ৫০ সে.মি. [এর ফলে বাংলাদেশ লোনা পানিতে ডুবে যাবে প্রায় ১১ শতাংশ। উদ্বাস্তু হবে প্রায় ১ কোটি ৮০ লাখ মানুষ]।
◊ জাতিসংঘ জলবায়ু পরিবর্তন সম্মেলন বা কপ-২৬ কোথায় অনুষ্ঠিত হয় ? উ: স্কটল্যান্ডের গ্লাসগোতে [৩১ অক্টোবর-১৩ নভেম্বর, ২০২১ এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ২০২২ সালে কপ-২৭ অনুষ্ঠিত হবে মিসরে এবং ২০২৩ সালে কপ-২৮ অনুষ্ঠিত হবে সংযুক্ত আরব আমিরাতে।]।
◊ বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে বেশি কার্বন নিঃসরণকারী দেশ কোনটি ? উ: চীন [দ্বিতীয় – যুক্তরাষ্ট্র, তৃতীয় – ইউরোপীয় ইউনিয়ন, চতুর্থ- ভারত এবং পঞ্চম- রাশিয়া]।
◊ বর্তমান বিশ্বে মাথাপিছু কার্বন নিঃসরণকারী শীর্ষ দেশ কোনটি ? উ: যুক্তরাষ্ট্র।
◊ ‘নোনা জলের কাব্য’ কী ? উ: জলবায়ু পরিবর্তনকে উপজীব্য করে একটি চলচ্চিত্র [এ চলচ্চিত্রটি স্কটল্যান্ডের গ্লাসগোতে অনুষ্ঠিত কপ-২৬ সম্মেলনে ৮ নভেম্বর, ২০২১ প্রদর্শিত হয়। এ চলচ্চিত্রের নির্মাণ করেন বাংলাদেশের রেজওয়ান শাহরিয়ার সুমিত]।
◊ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এ পর্যন্ত কয়টি টিকা ব্যবহারের অনুমোদন করেছে ? উ: ১০ টি [দশম টিকার উদ্ভাবক দেশ যুক্তরাষ্ট্র (নাম- নোভাক্সোভিড)]।
◊ সম্প্রতি কোন দেশ করোনায় আক্রান্তদের চিকিৎসায় প্রথমবারের মতো ট্যাবলেট ব্যবহারের অনুমোদন দেয় ? উ: যুক্তরাজ্য ট্যিাবলেটটির নাম- মলনুপিরাডির। উৎপাদনকারী দেশ যুক্তরাষ্ট্র ]।
◊ সম্প্রতি কোন দেশে ভ্যাকসিন পাসপোর্ট আইন অনুমোদিত হয়েছে ? উ: ফ্রান্স।
◊ সম্প্রতি কোন দেশে ডেল্টা এবং অমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের সংমিশ্রণে নতুন একটি ভ্যারিয়েন্ট দেখা দিয়েছে ? উ: সাইপ্রাসে [ভ্যারিয়েন্টটির নামকরণ করা হয়েছে ‘ডেল্টাক্রন’]।

বিশ্ব জনসংখ্যা প্রতিবেদন ২০২২

বিশ্ব জনসংখ্যা প্রতিবেদন প্রকাশ করে জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিল
◊ জনসংখ্যা (২০২২): ৭৯৫.৪০ কোটি
◊ জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার (২০২০-২০২৫): ১ %
◊ গড় আয়ু: পুরুষ ৭১ বছর এবং নারী ৭৬ বছর
◊ সর্বাধিক জন্মহারের দেশ: সিরিয়া (৫.৫ %)
◊ সর্বনিম্ন জন্মহারের দেশ: লেবানন (-১.৩ %)
◊ শূন্য জনসংখ্যা বৃদ্ধির দেশ: দক্ষিণ কোরিয়া, মন্টিনিগ্রো ও স্লোভাকিয়া
◊ জনসংখ্যায় বিশ্বের বৃহত্তম দেশ: চীন
◊ জনসংখ্যায় বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান: অষ্টম [১৬ কোটি ৭৯ লাখ। বৃদ্ধির হার ০.৯ %]
◊ সার্কভুক্ত দেশের তালিকায় জনসংখ্যায় বাংলাদেশের অবস্থান: তৃতীয়

ইউক্রেন-রাশিয়া সংঘাত

◊ সম্প্রতি কোন দেশটিকে নিয়ে বিশ্ব রাজনীতি টালমাটাল ? উ: ইউক্রেন [রাশিয়া, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতির শিকার]।
◊ রাশিয়ার সাথে ইউক্রেনের বিবাদ কী নিয়ে ? উ: ইউক্রেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন ন্যাটোতে যোগদানে আগ্রহী এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের সাথে মুক্ত বাণিজ্য এলাকার অর্থনৈতিক উৎপাদনের জন্য আবেদন করায় রাশিয়া ইউক্রেনের নিকট স্বল্প মূল্যে প্রাকৃতিক গ্যাস রপ্তানি স্থগিত করে। এটিই হচ্ছে রাশিয়া-ইউক্রেন দ্বন্দ্বের অন্যতম কারণ।
◊ ক্রিমিয়া কী ? উ: ক্রিমিয়া রাশিয়ার অন্তর্ভুক্ত একটি দ্বীপ [পূর্বে এটি ইউক্রেনের স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল ছিল। কৃষ্ণসাগরের উত্তর উপকূলের এ দ্বীপটি ২০১৪ সালে রাশিয়া দখল করে নেয়। সেভাস্তোপোল বন্দরটি ক্রিমিয়ায় অবস্থিত]।
◊ ডনবাস কী ? উ: ইউক্রেনে জাতিগত রুশ অধ্যুষিত একটি অঞ্চল।
◊ খারকিড অঞ্চলটি কোথায় ? উ: ইউক্রেনে ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০২২।
◊ রাশিয়া পূর্ব ইউক্রেনের কয়টি অঞ্চলকে স্বাধীন রাষ্ট্রের স্বীকৃতি দেয় ? উ: ২ টি [রুশ অধ্যুষিত পূর্ব ইউক্রেনের দোনেৎস্ক এবং লুহানস্ক।]
◊ রাশিয়া কবে ইউক্রেন আক্রমণ করে ? উ: ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২২।
◊ সুইফট কী ? উ: আর্থিক লেনদেনের ব্যাপারে বার্তা আদান-প্রদানকারী আন্তর্জাতিক নেটওয়ার্ক।
◊ বাংলাদেশের কোন জাহাজ ইউক্রেনে রকেট হামলার শিকার হয় ? উ: এমভি বাংলার সমৃদ্ধি [এ হামলায় বাংলাদেশের প্রকৌশলী হাদিসুর রহমান নিহত হয়]।
◊ রাশিয়া ও জার্মানির মধ্য দিয়ে প্রাকৃতিক গ্যাস চলাচলের লাইনটির নাম কী ? উ: নৰ্ড স্ট্রিম।
◊ ডনবাস সংঘাত বন্ধে ইউক্রেন ও রাশিয়ার মধ্যে কোন চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল ? উ: মিনস্ক চুক্তি।
◊ অপারেশন গঙ্গা কী ? উ: ইউক্রেনে আটকে পড়া ভারতীয় শিক্ষার্থীদের উদ্ধার অভিযান।
◊ রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ বন্ধের জন্য কোন দুটি দেশ আলোচনা ও বৈঠক এর উদ্যোগ নেয় ? উ: বেলারুশ এবং তুরস্ক।
◊ ইউক্রেনে সামরিক হামলা বন্ধে রাশিয়া ইউজেনকে কয়টি শর্ত দেয় ? উ: ৩ টি [শর্ত ৩ টি হলো- দোনেৎস্ক ও সুহানস্ককে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে মেনে নিতে হবে, ইউক্রেনের সংবিধান সংশোধন করতে হবে এবং ন্যাটো বা এমন কোন জোটে অন্তর্ভুক্তির অভিলাষ ত্যাগ করতে হবে]।

এক নজরে ইউক্রেন

◊ ইউক্রেন ইউরোপের কোন অঞ্চলে অবস্থিত ? উ: পূর্ব-ইউরোপ [ইউরোপের দ্বিতীয় বৃহত্তম রাষ্ট্র]।
◊ ইউক্রেন কত সালে স্বাধীনতা লাভ করে ? উ: ১৯৯১ সালে [সোভিয়েত ইউনিয়নের কাছ থেকে]।
◊ ইউক্রেনের সাথে সীমান্ত রয়েছে কয়টি দেশের ? উ: ৭ টি [পোল্যান্ড, স্লোভাকিয়া, হাঙ্গেরি, রোমানিয়া, মলদোভা, রাশিয়া ও বেলারুশ]।
◊ ইউক্রেনের দক্ষিণে কোন সাগর অবস্থিত ? উ: জাভা সাগর এবং আজভ সাগর।
◊ ইউক্রেনের রাজধানী ও বৃহত্তম শহর কোনটি ? উ: কিয়েভ [ নিপার নদীর তীরে অবস্থিত।
◊ ইউক্রেনের প্রধান ভাষা কি ? উ: ইউক্রেনিয়ান ইউক্রেনের মুদ্রার মান কি ? উ: রিভনিয়া।
◊ ইউক্রেনের পার্লামেন্টের নাম কি ? উ: ভারখোডনা রাদা।
◊ ইউক্রেনের অর্থনীতি কিসের উপর নির্ভরশীল ? উ: কৃষি ও খনিজ সম্পদ।
◊ ইউরোপের রুটির ঝুড়ি বলা হয় কোন দেশকে ? উ: ইউক্রেন।
◊ ইউক্রেনের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী কে ? উ: ডেনিস শেমগাল।
◊ ইউক্রেনের বর্তমান রাষ্ট্রপতি কে ? উ: ভ্লাদিমির জেলেনস্কি [২০১৯ সালে নির্বাচিত হন। রাজনৈতিক দলের নাম ‘সার্ভেন্ট অব দ্য পিপল’।]
◊ বর্তমান বিশ্বের কোন দেশটির প্রধান এক সময় টিভি’র কৌতুক অভিনেতা ছিলেন ? উ: ইউক্রেন [ভ্লাদিমির জেলেনস্কি]।
◊ ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ পারমাণবিক দুর্ঘটনা কোনটি ? উ: চেরনোবিল পারমাণবিক দুর্ঘটনা [২৬ এপ্রিল, ১৯৮৬ সালে এ দুর্ঘটনা ঘটে ]।

সাম্প্রতিক আলোচিত সংগঠন NATO

◊ NATO -এর পূর্ণরূপ North Atlantic Treaty Organization.
◊ NATO প্রতিষ্ঠিত হয় – ৪ এপ্রিল ১৯৪৯।
◊ NATO এর প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য ১২ টি।
◊ NATO এর বর্তমান সদস্য সংখ্যা: ৩০ টি (সর্বশেষ সদস্য: উত্তর মেসিডোনিয়া)।
◊ NATO এর প্রতিষ্ঠাকালীন সদর দপ্তর প্যারিস, ফ্রান্স। বর্তমানে সদর দপ্তর ব্রাসেলস, বেলজিয়াম।
◊ NATO ভুক্ত ইউরোপের বাইরের দেশ যুক্তরাষ্ট্র ও তুরস্ক।
◊ NATO গঠিত হয়েছিল স্নায়ুযুদ্ধকে কেন্দ্র করে (আমেরিকার নেতৃত্বে)।
◊ NATO জোটভুক্ত যে দেশটি কোন সামরিক কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ করতো না – ফ্রান্স।
◊ NATO ভুক্ত মুসলিম দেশ: তুরস্ক ও আলবেনিয়া।
◊ সম্প্রতি স্ক্যান্ডিনেভিয়ান কোন ২ টি দেশ ন্যাটোতে যোগদানের আবেদন করেছে ? উ: ফিনল্যান্ড ও সুইডেন।
◊ ন্যাটোতে নতুন সদস্য নিতে হলে কতটি দেশের সম্মতি প্রয়োজন ? উ: ন্যাটোভুক্ত সকল সদস্যের।

বিভিন্ন রিপোর্ট/জরিপ/সমীক্ষায় বর্তমান বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান

(নোট ১ এবং ৩ এর চেয়ে এ তালিকাটি আপডেটেড)

রিপোট জরিপ/সমীক্ষা → বাংলাদেশের অবস্থান
◊ জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে, ইলিশ উৎপাদনে, জাহাজ রিসাইকেলকরণে
(ভাঙায়), দ্রুত সম্পদ বৃদ্ধিকারী, পাট রপ্তানিতে, বায়ু দূষণে → প্রথম
◊ বৈশ্বিক শব্দদূষণে [সবচেয়ে কম শব্দদূষণ হয় অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন] → প্রথম [ঢাকা]
◊ করোনাভাইরাস মোকাবিলায় (শীর্ষ দেশ কাতার) → পঞ্চম (দক্ষিণ এশিয়ায় ১ম)
◊ বৈশ্বিক অস্ত্র আমদানি (আমদানিতে শীর্ষ দেশ ভারত। রপ্তানিতে শীর্ষ দেশ যুক্তরাষ্ট্র) → ২৪ তম (আমদানি)
◊ বৈশ্বিক খাদ্য নিরাপত্তা সূচক ২০২২ (শীর্ষ দেশ আয়ারল্যান্ড। নিম্ন দেশ বুরুন্ডি) → ৮৪ তম
◊ বিশ্ব সুখ প্রতিবেদন ২০২২ (শীর্ষ দেশ ফিনল্যান্ড। নিম্ন দেশ আফগানিস্তান) → ৯৪ তম
◊ বৈশ্বিক শাস্তি সূচক (শীর্ষ দেশ- আইসল্যান্ড) → ৯৭ তম
◊ হেনলি পাসপোর্ট সূচক (শীর্ষ দেশ- জাপান ও সিঙ্গাপুর, নিম্ন দেশ আফগানিস্তান) → ১০৪ তম

◊ বর্তমান বিশ্বে মাতৃভাষার সংখ্যা অনুসারে বাংলা ভাষা কততম ? উ: পঞ্চম [ব্যবহৃত ভাষার দিক থেকে বাংলা ভাষা বিশ্বের শীর্ষ ষষ্ঠ ভাষা]
◊ ফোর্বস এর তথ্যমতে, বর্তমান বিশ্বে শীর্ষ ধনী কে ? উ: ইলন মাস্ক [তার সম্পদের পরিমাণ ২১৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার]

মৌলিক বিষয়াবলি

অর্থনীতি

অর্থনীতির সংজ্ঞা, অর্থ ও আওতা

◊ অর্থনীতির জনক কে ? উ: এ্যাডাম স্মিথ।
◊ অর্থনীতির প্রথম ধারণা দেন কে ? উ: Aristotle.
◊ অর্থনীতি সংক্রান্ত এ্যাডাম স্মিথের বিখ্যাত গ্রন্থ- উ: Wealth of Nations.
◊ ‘Wealth of Nations’ প্রকাশিত হয়- উ: ১৭৭৬ সালে।
◊ স্মিথের অনুসারীরা অর্থনীতিকে কি বলে আখ্যায়িত করেন ? উ: Science of wealth.
◊ Adam Smith সম্পদ বলতে শুধু উ: বস্তুগত সম্পদকে বুঝিয়েছেন।
◊ Adam Smith এর সংজ্ঞায়- উ: মানব কল্যাণ অনুপস্থিত।
◊ ‘Principles of Economics’ কার লেখা ? উ: আলফ্রেড মার্শাল।
◊ New Classical মতবাদের প্রবক্তা কে ? উ: আলফ্রেড মার্শাল।
◊ ‘Principles of Economics’ কত সালে প্রকাশিত হয় ? উ: ১৮৯০ সালে।
◊ আধুনিক মতবাদের প্রবক্তা কে ? উ: L. Robins.
◊ L. Robins অর্থনীতিকে কি বলে অভিহিত করেছেন ? প্রাচুর্যের বিজ্ঞান।
◊ “অর্থনীতি একটি নিরপেক্ষ বিজ্ঞান” কার উক্তি ? উ: রবিন্স ও স্টিগলার।
◊ “মানুষের কার্যাবলীর যে অংশ অর্থের সাথে জড়িত অর্থনীতি তা নিয়ে আলোচনা করে” উক্তিটি কার ? উ: কেয়ার্নক্রস।

অর্থনৈতিক সমস্যা ও সমাধান

◊ অভাব ক্রমাগত কি হারে বাড়ছে ? উ: জ্যামিতিক হারে।
◊ কোন বিপ্লবের মাধ্যমে সমগ্র ইউরোপে ধনতান্ত্রিক বিপ্লব শুরু হয় ? উ: ফরাসী বিপ্লব।
◊ শিল্প বিপ্লব কবে, কোথায় সংঘটিত হয় ? উ: ১৭৬০-১৮৩০ সালে, ইংল্যান্ডে।
◊ ভোক্তার নির্বাচনের স্বাধীনতাকে কি বলে ? উ: বাজার।
◊ কোন দেশে ধনতন্ত্রের প্রভাব রয়েছে ? উ: যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডা।
◊ সমাজতান্ত্রিক অর্থব্যবস্থার মূলনীতি কি ? উ: শোষণহীন সমাজ।
◊ বাংলাদেশে কোন ধরণের অর্থ ব্যবস্থা বিদ্যমান ? উ: মিশ্র অর্থ ব্যবস্থা।
◊ মিশ্র অর্থনৈতিক ব্যবস্থার সুতিকা গৃহ- উ: ইংল্যান্ড।
◊ জাতীয় আয়ের সুষম বণ্টন নিশ্চিত করে- উ: সমাজতন্ত্র।

অর্থনীতির কতিপয় মৌলিক ধারণা

◊ আধুনিক যুগে অর্থনীতিকে প্রথম কয়টি দৃষ্টিকোণ থেকে বিশ্লেষন করা যায় ? উ: দুটি, ক) ব্যষ্টিক খ) সামষ্টিক।
◊ কে অর্থনীতিকে ব্যষ্টিক ও সামষ্টিক এ দুটি অংশে বিভক্ত করেন ? উ: রাগনার ফ্রেশ, ১৯৩৩ সালে।
◊ প্রাপ্তির দিক দিয়ে দ্রব্য কত প্রকার ? উ: দু’প্রাকার। যথাঃ ক) অবাধ দ্রব্য খ) অর্থনৈতিক দ্রব্য।
◊ আর্থিক আয় কাকে বলে ? উ: শ্রমের বিনিময়ে যে পরিমাণ অর্থ প্রাপ্ত হয়।
◊ প্রকৃত আয় কি ? উ: আর্থিক আয়ের বিনিময়ে যে পরিমাণ দ্রব্যসামগ্রী ও সেবা ক্রয় করা যায়।
◊ অর্থনীতিতে ভোগ কি ? উ: অভাব পূরণের উদ্দেশ্যে ব্যবহারের মাধ্যমে কোনো দ্রব্যের উপযোগ নিঃশেষ করা।
◊ সঞ্চয় কাকে বলে ? উ: যে অংশ বর্তমানে ভোগ না করে ভবিষ্যতে ভোগের জন্য রেখে দেওয়া হয়।
◊ কোন দ্রব্যের বিনিময় মূল্য নির্ভর করে- উ: চাহিদা ও যোগানের উপরে।
◊ কোন দ্রব্যের অভাব পূরণের ক্ষমতাকে কি বলে ? উ: উপযোগ।
◊ সঞ্চয় ও বিনিয়োগের মধ্যে সম্পর্ক কী ? উ: ঘনিষ্ট সম্পর্ক।

অভাব

◊ অভাব কি ? উ: মানুষের সকল অর্থনৈতিক কার্যাবলীর উৎস হল অভাব।
◊ অভাব কত প্রকার ? উ: ৩ প্রকার। যথা- ১) প্রয়োজনীয় ২) আরামপ্রদ ৩) বিলাসজাত।
◊ মানুষের প্রয়োজনীয় অভাব কত প্রকার ও কি কি ? উ: ৩ প্রকার।
যথা- ১) জীবন ধারনের জন্য প্রয়োজন ২) দক্ষতার জন্য প্রয়োজন ৩) অভ্যাসজনিত প্রয়োজন।
◊ ভোগ ক্রিয়ার ভিত্তিতে বিলাস দ্রব্য কত প্রকার- উ: ২ প্রকার। যথাঃ ১) ক্ষতিকারক বিলাস দ্রব্য ২) ক্ষতিহীন বিলাস দ্ৰব্য।
◊ অভাবের বৈশিষ্ট্য প্রধানত কয়টি ? উ: ৪ টি। যথা- ১) অভাব অসীম ২) বিশেষ অভাব সসীম ৩) অভাব পরস্পর পরিপূরক ৪) অভাব পরস্পরের বিকল্প।

উপযোগ

◊ কোন দ্রব্যের দ্বারা মানুষের অভাব পূরণের ক্ষমতাকে কি বলে ? উ: উপযোগ।
◊ অতিরিক্ত এক একক ভোগ করার ফলে মোট উপযোগের যে পরিবর্তন হয় তাকে কি বলে ? উ: শূন্য উপযোগ।
◊ শূন্য উপযোগ শূন্য হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত মোট উপযোগ কি হবে ? উ: ক্রমান্বয়ে বাড়তে থাকবে।
◊ শূন্য উপযোগ ঋণাতৃক হলে- উ: মোট উপযোগ কমবে।
◊ শূন্য উপযোগ রেখাটি ডানদিকে নিম্নগামী হয় কেন ? উ: ভোগ বাড়লে শূন্য উপযোগ কমে।

চাহিদা

◊ চাহিদার তিনটি বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন আকাঙ্খাকে কি বলে ? উ: সক্রিয় চাহিদা।
◊ দামের সাথে চাহিদার নির্ভরশীলতাকে কি বলে ? উ: চাহিদা বিধি।
◊ চাহিদা সূচি কত প্রকার ? উ: ২ প্রকার। যথা: ১) ব্যক্তিগত চাহিদা সূচি ২) বাজার চাহিদা সূচি।
◊ চাহিদা রেখা ডানদিকে নিম্নগামী কেন ? উ: দাম ও চাহিদার মধ্যে বিপরীতমুখী সম্পর্কের কারণে।
◊ চাহিদা সূচি ও চাহিদা রেখা কি প্রকাশ করে ? উ: চাহিদা বিধি।

যোগান

◊ নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্ট দামে বিক্রেতাগণ কোন দ্রব্যের যে পরিমাণ বিক্রয় করতে প্রস্তুত থাকে, তাকে কি বলে ? উ: যোগান।
◊ যোগানের সাথে সরাসরি সম্পর্ক কিসের ? উ: দামের ও বিক্রেতা যে দামে দ্রব্য বিক্রয় করতে রাজি থাকে , তাকে কি বলে ? উ: যোগান দাম।
◊ যে বিধির সাহায্যে দ্রব্যের দাম ও যোগানের সম্পর্ক প্রকাশ করা হয় তাকে কি বলে ? উ: যোগান বিধি।
◊ বিক্রেতাগণ যে পরিমাণ দ্রব্য যোগান দিতে রাজি থাকে তা যখন কোন তালিকা বা সূচির মাধ্যমে প্রকাশ করা হয় তখন তাকে কি বলে ? উ: যোগান সূচি।
◊ যোগান বিধিতে দাম ও যোগানের সম্পর্ক কিরূপ ? উ: সমমুখী ও অনূকুল p কমলে Qs কমে p বাড়লে Qs বাড়ে
◊ দ্রব্যের মূল্যের পরিবর্তন ও যোগানের পরিবর্তনের আনুপাতিক হারকে কি বলা হয় ? উ: যোগানের স্থিতিস্থাপকতা।
◊ যোগান রেখা ডান দিকে ঊর্ধ্বগামী কেন ? উ: দাম ও যোগানের মধ্যে প্রত্যক্ষ সম্পর্ক থাকার কারণে।
◊ Qs = f (p) বলতে কি বুঝায় ? উ: Quantity supply is the function of price.
◊ এককের অধিক স্থিতিস্থাপক যোগান রেখার ঢাল কিরূপ ? উ: দাম অংক ছেদ করে ডান দিকে উর্ধ্বগামী।
◊ এককের কম স্থিতিস্থাপক যোগান রেখার ঢাল কিরূপ ? উ: ভুমি অংকে ছেদ করে ডান দিকে উর্ধ্বগামী।

উৎপাদন ও এর উপাদান

◊ উৎপাদনের কয়টি খাত রয়েছে ও কি কি ? উ: ৩ টি। যথা: – ১) প্রাথমিক খাত ২) মধ্যবর্তী খাত ৩) টারসিয়ারী খাত।
◊ টারসিয়ারী খাতে উৎপাদিত সেবাকে কয় ভাগে ভাগ করা যায় ও কি কি ? উ: ২ ভাগে। যথাঃ ক) বাণিজ্যিক সেবা খ) প্রত্যক্ষ বা ব্যক্তিগত সেবা।
◊ অর্থনীতিতে উৎপাদন বলতে কি বুঝায় ? উ: উপযোগ সৃষ্টি করাকে।
◊ “যদি ভোগ বলতে উপযোগের ব্যবহার বুঝায় তবে উৎপাদন বলতে উপযোগ সৃষ্টি বুঝায়” কার উক্তি ? উ: Fraser.
◊ “বিক্রির জন্য দ্রব্য সামগ্রীর উৎপাদন এবং মূল্যের বিনিময়ে যে সেবাকার্য প্রদান করা হয় তাকে উৎপাদন বলে”। উক্তিটি কার ? উ: কেয়ার্নক্রসের।
◊ উপযোগ কত প্রকার ও কি কি ? উ: ৪ প্রকার। যথাঃ ১) রূপগত উপযোগ ২) স্থানগত উপযোগ ৩) সময়গত উপযোগ ৪) সেবাগত উপযোগ।
◊ উৎপাদনের উপকরণ সমূহ কত প্রকার ? উ: ৪ প্রকার। যথাঃ ১) ভূমি ২) শ্রম ৩) মূলধন ৪) সংগঠন।

ভূমি

◊ উৎপাদনের কোন উপাদান স্থানান্তরযোগ্য নয় ? উ: ভূমি।
◊ প্রকৃতির দান যাহা মানুষ সৃষ্টি করতে পারে না তাকে কি বলে ?. উ: ভূমি।
◊ একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ ভূমি যে পরিমাণ উৎপাদনে সক্ষম, তাকে কি বলে ? উ: ভূমির উৎপাদন ক্ষমতা।
◊ উৎপাদন ক্ষমতার তারতম্যের কারণ কি কি ? উ: ১) প্রাকৃতিক কারণ, ২) ভৌগোলিক কারণ, ৩) অর্থনৈতিক কারণ।
◊ কোন নির্দিষ্ট ভূমিতে শ্রম ও মূলধন নিয়োগ করলে কি হয় ? উ: শূন্য ও গড় উৎপাদন ক্রমশঃ হ্রাস পেতে থাকে।

শ্রম

◊ শূন্য উৎপাদন ক্ষমতা বলতে কি বুঝায় ? উ: শূন্য আয় উৎপাদন এবং শূন্য দ্রব্য উৎপাদন।
◊ “শ্রমিক তার শ্রম বিক্রয় করে মাত্র নিজেকে বিক্রয় করে না”। উক্তিটি কার ? উ: অধ্যাপক মার্শাল।
◊ নিপুন এবং মানসিক বা কায়িক যে কোন প্ররিশ্রম যদি সম্পদ বা অর্থলাভের জন্য কাজ করা হয় তবে তাকে কি বলে ? উ: শ্রম।
◊ উৎপাদনশীল ও অনুৎপাদনশীল শ্রমের ব্যাপারে কয়টি ধারণা রয়েছে ? উ: তিনটি।
যথাঃ ১) ফিজিও ক্রাটিক ধারণ ২) ক্ল্যাসিক্যাল ধারণা ৩) আধুনিক ধারণা।
◊ “যে সব শ্রম প্রত্যক্ষভাবে অতিরিক্ত কিছু উৎপাদন কাজে সহায়তা করে সেগুলো হল উৎপাদনশীল শ্রম” ধারণাটি কাদের ? উ: ফিজিওক্র্যাটিকদের।
◊ “যে সব শ্রম দ্বারা প্রকৃত কোন দ্রব্য উৎপাদন করা হয় তাকে বলে উৎপাদনশীল শ্রম” ধারণাটি কাদের ? উ: ক্ল্যাসিক্যাল অর্থনীতিবিদদের।
◊ যে শ্রম দ্বারা উৎপাদিত বস্তুগত বা অবস্তুগত দ্রব্য মানুষের অভাব পূরণ করতে সক্ষম তাকে উৎপাদনশীল শ্রম বলে ধারণাটি কাদের ? উ: আধুনিক অর্থনীতিবিদদের।
◊ ব্যবহারের তারতম্যের ভিত্তিতে মূলধন কত প্রকার ? উ: দুই প্রকার। যথাঃ ১) ভোগ্য মূলধন, ২) উৎপাদক মূলধন।
◊ মূলধনকে কিভাবে বিনিয়োগ করা উচিৎ ? উ: যেন এর উৎপাদন সর্বাধিক হয়।
◊ অর্থনীতির উপর লিখিত কয়টি মতবাদ উল্লেখযোগ্য ? উ: ২ টি যথাঃ ১) ম্যালথাসের জনসংখ্যা তত্ত্ব ২) কাম্য জনসংখ্যা তত্ত্ব।
◊ “Man multiply like mice nine a barn” উক্তিটি কার ? উ: ক্যানটিলনের।
◊ সঞ্চয়ের সাথে মূলধনের সম্পর্ক কি ? উ: সঞ্চয় বাড়লে বিনিয়োগ বাড়ে, বিনিয়োগ বাড়লে মূলধন বাড়বে।
◊ ম্যালথাসের জনসংখ্যা তত্ত্ব কোন গ্রন্থে কত সালে প্রকাশিত হয় ? উ: Essay on the principle of population নামক গ্রন্থে ১৭৯৮ সালে।
◊ ম্যালথাসের জনসংখ্যার তত্ত্বে কি উপেক্ষিত হয়েছে ? উ: জনসংখ্যা গুণগতদিক।
◊ জনসংখ্যার আধুনিক তত্ত্ব কি নামে পরিচিত ? উ: কাম্য জনসংখ্যা তত্ত্ব।
◊ জনসংখ্যা তত্ত্বটির প্রবক্তা হলেন- উ: ক্যানান, মিউজিক, কার ম্যান্ডর্স প্রমুখ অর্থনীতিবিদ।
◊ মূলধন গঠন কয়টি বিষয়ের উপর নির্ভর করে ? উ: তিনটি। যথাঃ ১) সঞ্চয়ের সামর্থ্য, ২) সঞ্চয়ের ইচ্ছা, ৩) বিনিয়োগের সুযোগ।
◊ কাম্য জনসংখ্যা তত্ত্বের সূত্রটি কি ? উ: গ = (A-0)/0.
◊ জ্যামিতিক হার বলতে কি বুঝায় ? উ: ১ , ২ , ৪ , ৮।
◊ জনাধিক্য সমস্যা দূর করার কয়টি উপায়ের কথা ম্যালথাস বলেছেন ? উ: ২ টি। যথাঃ ১) প্রতিষেধক, ২) প্রাকৃতিক প্রতিরোধ।
◊ ম্যালাথাসের মতে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ না করা হলে কত বছর জনসংখ্যা দ্বিগুণ হবে ? উ: ২৫ বছর।
◊ শ্রমের দক্ষতা কি ? উ: শ্রমের উৎপাদন ক্ষমতা।
◊ প্রতিষেধক ব্যবস্থা কোনটি ? উ: চির কৌমার্য পালন।
◊ দক্ষ শ্রমিক উদ্যোগী হয়ে – দায়িত্ব সচেতন জ্ঞানে কাজ করলে কি হয় ? উ: শিল্পের প্রতিযোগী ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।
◊ শ্রমের গতিশীলতা কত প্রকার ? উ: চার প্রকার। যথাঃ ১) ভৌগলিক, ২) পেশাগত, ৩) শিল্পগত, ৪) স্তরগত।

মুলধন

◊ “সঞ্চিত শ্রম ও সঞ্চিত প্রাকৃতিক সম্পদের যুক্ত ফল হচ্ছে মূলধন” কার উক্তি ? উ: অর্থনীতিবিদ উহকসেল।
◊ “মূলধন হলো ভবিষ্যৎ সম্পদ উৎপাদনের জন্য শ্রমের সংগৃহীত উৎপাদন” কার উক্তি ? উ: জে. এস. মিল।
◊ মূলধন উৎপাদনের উৎপাদিত উপাদান- কার উক্তি ? উ: বমবওয়ার্ক।
◊ মূলধনের দক্ষতা বলতে কি বুঝায় ? উ: মূলধনের উৎপাদন ক্ষমতা।
◊ কার্যকালের ভিত্তিতে মূলধন কত প্রকার ? উ: দুই প্রকার ১) স্থায়ী মূলধন, ২) চলতি মূলধন।
◊ মালিকানার ভিত্তিতে মূলধন কত প্রকার ? উ: দুই প্রকার ১) ব্যক্তিগত, ২) জাতীয়।
◊ মূলধন গঠনের স্তর কয়টি ? উ: তিনটি।
যথা: ১) সঞ্চয় সৃষ্টি ২) সঞ্চয়কে বিনিয়োগ তহবিল, ৩) সঞ্চিত অর্থ দ্বারা মূলধন দ্রব্য সংগ্রহ।
◊ অতিভোগ স্তর বা অর্থনীতির চূড়ান্ত পর্যায়ে উপনীত হওয়া কখন সম্ভব ? উ: মূলধনের যথাযথ প্রয়োগ ও ব্যবহার করার পর।
◊ মূলধনকে আয়ের উৎস হিসাবে অভিহিত করেছেন কে ? উ: অধ্যাপক মার্শাল।
◊ মূলধনের অন্যতম রূপ ? উ: অর্থ।
◊ পুঁজিবাদী সমাজের মূলধন গঠনের প্রক্রিয়া কয়টি ও কি কি ? উ: ৩ টি।
যথা: ১) আর্থিক সঞ্চয়ের সৃষ্টি, ২) আর্থিক সঞ্চয় সৃষ্টি, ৩) আর্থিক সঞ্চয়কে মূলধন দ্রব্যে রূপান্তর

সংগঠন

◊ ব্যবসায়ের অতি প্রাচীনতম রূপ কী ? উ: এক মালিকানা কারবার।
◊ অংশীদারি কারবারে কতজন ব্যক্তি কারবারের সদস্য হতে পারে ? উ: ন্যূনতম ২ জন এবং সর্বাধিক ২০ জন।
◊ অংশীদারি কারবারে অংশীদারগণের দায়িত্ব কেমন ? উ: অসীম।
◊ যৌথ মূলধনী কারবার কত শতাব্দীতে চালু হয় ? উ: ১৭ তম শতাব্দী।
◊ কোন দেশে প্রথম যৌথমূলধনী কারবার চালু হয় ? উ: ইংল্যান্ড।
◊ যৌথমূলধনী কারবার কয় প্রকার ও কি কি ? উ: ২ প্রকার।
যথা: ক) প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি, খ) পাবলিক লিমিটেড কোম্পানি।
◊ প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি এর সদস্য সংখ্যা কৃত হতে পারে ? উ: সর্বনিম্ন ২ হতে সর্বোচ্চ।
◊ বৃহদায়তন শিল্পে কোন কারবার সুবিধাজনক ? উ: যৌথমূলধনী কারবার।
◊ বাংলাদেশ স্টক এক্সচেঞ্জ কয়টি ও কোথায় অবস্থিত ? উ: ২ টি। ঢাকা ও চট্টগ্রামে।
◊ ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ কত সালে প্রতিষ্ঠিত হয় ? উ: ১৯৫৪ সালে।
◊ চট্টগ্রামে স্টক এক্সচেঞ্জ কত সালে কার্যক্রম শুরু করে ? উ: ১৯৯৫ সালের ১০ অক্টোবর।
◊ উৎপাদনের সর্বশেষ উপাদান কোনটি ? উ: সংগঠন।
◊ “কর্মী ও কর্মের মধ্যে সামঞ্জস্যপূর্ণ পারস্পরিক সম্পর্কই হলো সংগঠন” উক্তিটি কার ? উ: অধ্যাপক মিলওয়ার্ড।
◊ মূলধন নিগুড় পদ্ধতি কি ? উ: শ্রম অপেক্ষা মূলধন নিয়োগের পরিমাণ বেশি।
◊ কারবার সংগঠন কত প্রকার ? উ: সাত প্রকার। যথা: ১) একক মালিকানা, ২) অংশীদারী, ৩) যৌথ মূলধনী, ৪) রাষ্ট্রীয়, ৫) সমবায়, ৬) কারবারী জোট, ৭) যৌথ উদ্যোগ।
◊ কোম্পানী নিবন্ধনকালে যে পরিমাণ অর্থ শেয়ার বিক্রয় করে জনসাধারনের কাছ থেকে আদায়ের জন্য সরকারের অনুমোদন লাভ করে, তাকে কি বলে ? উ: অনুমোদিত মূলধন।
◊ ইস্যুকৃত মূলধন কি ? উ: অনুমোদিত মূলধনের যে অংশ সংগ্রহের জন্য শেয়ার বাজারে ছাড়া হয়।
◊ শেয়ার মূলধনের যে পরিমাণ প্রকৃতভাবে জনসাধারনের নিকট বিক্রয় হয়েছে , তাকে কি বলে ? উ: দেয় মূলধন।
◊ “সমবায় এমন একটি প্রতিষ্ঠান যেখানে মানুষ তাদের আর্থিক অবস্থার উন্নতির জন্য স্বেচ্ছায় সম অধিকারের ভিত্তিতে একে অপরের সাতে সহযোগিতা করে” কার উক্তি ? উ: কার্লভার্ট।
◊ “Everybody’s business is nobody’s business” উক্তিটি কোন কারবারের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য ? উ: সমবায় কারবার।
◊ উদ্যোক্তা হলো কারবারের কর্তা কে বলেছেন ? উ: অধ্যাপক মার্শাল।
◊ মিশ্র অর্থনীতিতে সংগঠনের দায়িত্ব পালন করে কে ? জনসাধারণ ও সরকার।
◊ ভূমি, শ্রম ও মূলধনের সমন্বয়কে কি বলে ? উ: সংগঠন।
◊ সংগঠনের সর্বাপেক্ষা গুরুত্বপূর্ণ কাজ কি ? উ: ঝুঁকি বহন।
◊ যে কারবারে ১ জন মাত্র মালিক তাকে কি বলে ? উ: একক মালিকানা কারবার।
◊ কয়েক ব্যক্তি দ্বারা গঠিত ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানকে কি বলে ? উ: অংশীদারি কারবার।
◊ যৌথমূলধনী কারবারে মূলধনের ক্ষুদ্র অংশকে কি বলে ? উ: শেয়ার মূলধন।
◊ যৌথমূলধনী কারবারে মূলধন সংগ্রহ হয় কিভাবে ? উ: শেয়ার ও ঋণ পত্র বিক্রয় করে।
◊ সমবায়ের প্রধান নীতি কি ? উ: একতাই বল।

শ্রম বিভাগ

◊ শ্রম বিভাগ কত প্রকার ? উ: চার প্রকার। যথা- ১) পেশাগত, ২) সম্পূর্ন প্রক্রিয়াগত, ৩) অসম্পূর্ন প্রক্রিয়াগত, ৪) আঞ্চলিক।
◊ শ্রম বিভাগ প্রবর্তনের মূখ্য উদ্দেশ্য কি ? উ: অধিক উৎপাদন।
◊ শ্রমবিভাগ কার আয়তন দ্বারা সীমাবদ্ধ ? উ: বাজারের পরিধি।
◊ “শ্রম বিভাগ বাজারের আয়তন দ্বারা সীমাবদ্ধ” কার উক্তি ? উ: এ্যাডাম স্মিথ।
◊ বাজারের আয়তন বেশি হলে উ: শ্রম বিভাগের মাত্রা বেশি হয়।
◊ বাজারের আয়তন কম হলে- উ: শ্রম বিভাগের মাত্রা কম হবে।
◊ পেশাগত শ্রমবিভাগের উদাহরন দাও ? উ: মুচির জুতা তৈরী, তাতীর কাপড় বুনা, স্বর্ণকারের অলংকার।
◊ যখন কোন নির্দিষ্ট স্থানে একই দ্রব্যের বিভিন্ন শিল্প কারখানা গড়ে উঠে তাকে কি বলে ? উ: শিল্পের স্থানীয়করণ।
◊ “The concentration of an industry mainly in one area is known as localistio of industry” কে বলেছেন ? উ: অধ্যাপক হ্যানসন।
◊ শিল্পের স্থানীয়করণ প্রথম কোথায় শুরু হয় ? উ: ইংল্যান্ডে, উনিশ শতকে।
◊ শিল্পের স্থানীয়করণের কারণসমূহ কত প্রকার ? উ: ৫ প্রকার।
যথাঃ ১) প্রাকৃতিক, ২) অর্থনৈতিক, ৩) রাজনৈতিক, ৪) মনস্তাত্বিক, ৫) ধর্মীয়।
◊ মুসলমানদের হস্ত্বকে কেন্দ্র করে পবিত্র মক্কা নগরীতে কি কি শিল্প গড়ে উঠেছে ? উ: পোশাক, জায়নামাজ, তসবীহ ইত্যাদি শিল্প।

উৎপাদন আয়তন

◊ উৎপাদক প্রতিষ্ঠান বা ফার্ম কি ? উ: যে কোন দ্রব্য উৎপাদনকারী একক প্রতিষ্ঠান।
◊ সমজাতীয় দ্রব্য উৎপাদনকারী সব প্রতিষ্ঠানগুলোকে কি বলে ? উ: শিল্প।
◊ বৃহদায়তন উৎপাদনের গুরুত্ব কখন বেড়েছে ? উ: শিল্প বিপ্লবের পর।
◊ ব্যয় সংকোচ কত প্রকার ? উ: ২ প্রকার। যথাঃ ১) অভ্যন্তরীন ২) বহিস্থ।
◊ কোন অর্থনীতিবিদ ব্যয় সংকোচকে দুই ভাগে ভাগ করেছেন ? উ: অধ্যাপক মার্শাল।
◊ ক্ষুদ্রায়তন শিল্পের গুরুত্ব কোথায় ? উ: গ্রামীন অর্থনীতিতে।
◊ যে উৎপাদনে প্রচুর কাঁচামাল ও মূলধন লাগে তাকে কি বলে ? উ: বৃহদায়তন উৎপাদন।
◊ যে উৎপাদনে কম শ্রমিক ও কম মূলধন লাগে তাকে কি বলে ? উ: ক্ষুদ্রায়তন উৎপাদন।

উৎপাদন বিধিসমূহ

◊ উৎপাদন বিধি কত প্রকার ? উ: ৩ প্রকার। যথাঃ ১) ক্রমহ্রাসমান, ২) ক্রমবর্ধমান, ৩) সমানুপাতিক।
◊ Classical এবং New Classical অর্থনীতিবিদগণ কিভাবে ক্রমহ্রাসমান শূন্য উৎপাদন বিধি ব্যাখ্যা করেন ? উ: গড় উৎপাদনের ভিত্তিতে।
◊ আধুনিক অর্থনীতিবিদগণ কিসের ভিত্তিতে ক্রমহ্রাসমান শূন্য উৎপাদন বিধিকে ব্যাখ্যা করেন ? উ: শূন্য উৎপাদনের ভিত্তিতে।
◊ অধ্যাপক বেনহাম কিভাবে ক্রমহ্রাসমান প্রান্তিক উৎপাদন বিধিটি ব্যাখ্যা করেন ? উ: প্রাথমিক ও গড় উৎপাদনের মাধ্যমে।
◊ ক্রমহ্রাসমান উৎপাদন বিধির ব্যতিক্রম কখন দেখা যায় ? উ: ১) উৎপাদনের প্রাথমিক পর্যায়, ২) প্রাকৃতিক পরিবর্তন, ৩) চাষ পদ্ধতির আধুনিকরণ।
◊ ক্রমবর্ধমান বিধিকে অন্য কি বিধি বলা হয় ? উ: ক্রমহ্রাসমান খরচের বিধি।
◊ সমানুপাতিক শূন্য উৎপাদন বিধি দেখতে কেমন ? উ: সমান্তরাল।
◊ সমানুপাতিক উৎপাদন বিধিতে শ্রম ও মূলধন ব্যয় বাড়ার ফলে মোট ও গড় শূন্য উৎপাদনে বিরূপ প্রভাব ফেলবে ? উ: সমহারে বাড়বে।

বাজার

◊ আধুনিক অর্থ ব্যবস্থার প্রাণ কেন্দ্র কি ? উ: বাজার।
◊ অর্থনীতিতে বাজার বলতে কি বুঝায় ? উ: নির্দিষ্ট পণ্যকে বুঝায় যার ক্রয়-বিক্রয় নিয়ে ক্রেতা বিক্রেতার মধ্যে দরকষাকষির মাধ্যমে একটি নির্দিষ্ট দামের সৃষ্টি হয়।
◊ “বাজার বলতে কোন স্থানকে বুঝায় না, বরং এক বা একাধিক পণ্যকে বুঝায় যা ক্রেতা বিক্রেতার মধ্যে প্রত্যক্ষ প্রতিযোগিতার মাধ্যমে ক্রয়-বিক্রয় হয়” উক্তিটি কার ? উ: অধ্যাপক চ্যাপম্যানের।
◊ বাজারকে কয়টি দৃষ্টিকোণ থেকে ভাগ করা যায় ? উ: তিনটি।
যথা- ১) ভৌগোলিক সীমারেখার ভিত্তিতে, ২) সময়ের ভিত্তিতে, ৩) প্রতিযোগিতার ভিত্তিতে।
◊ ভৌগোলিক সীমারেখার ভিত্তিতে বাজার কত প্রকার ও কি কি ? উ: তিন প্রকার।
যথাঃ ১) স্থানীয় বাজার, ২) জাতীয় বাজার, ৩) আন্তর্জাতিক বাজার।
◊ সময়ের ভিত্তিতে বাজার কত প্রকার ও কি কি ? উ: ৪ প্রকার।
যথা: ১) অতিস্বল্পকালীন বাজার, ২) স্বল্পকালীন বাজার, ৩) দীর্ঘকালীন বাজার, ৪) অতিদীর্ঘকালীন বাজার।
◊ প্রতিযোগিতামূলক বাজার কত প্রকার ? উ: ৫ প্রকার।
যথা: ১) একচেটিয়া বাজার, ২) ডুয়োপলি বাজার, ৩) অলিগোপলি বাজার, ৪) মনোলপি বাজার, ৫) একচেটিয়া।
◊ প্রতিযোগিতার বাজার কান বিক্রেতার চাহিদা রেখা ডানদিকে নিম্নগামী হলে বুঝতে হবে যে অপূর্ণ প্রতিযোগিতার উদ্ভব হয়েছে কে বলেছে ? উ: অধ্যাপক লার্নার।
◊ যে বাজারে একজন মাত্র ক্রেতা থাকে তাকে কোন ধরনের বাজার বলে ? উ: মনোপলি বাজার।
◊ যে বাজারে দুইজন মাত্র ক্রেতা থাকে তাকে কোন ধরনের বাজার বলে ? উ: ডুয়োলপি বাজার।
◊ যে বাজারে একমাত্র বিক্রেতা থাকে তাকে কোন ধরনের বাজার বলে ? উ: একচেটিয়া।
◊ যে বাজারে পূর্ণ প্রতিযোগিতা ও একচেটিয়া কারবার একই সাথে পরিচালিত হয় তাকে কি বাজার বলে ? উ: একচেটিয়ামূলক প্রতিযোগিতার বাজার।
◊ পূর্ণ-প্রতিযোগিতামূলক বাজারের বৈশিষ্ট্য কি কি ? উ: অধিক সংখ্যক ক্রেতা-বিক্রেতা, সমজাতীয় দ্রব্য, দ্রব্য মূল্য একই, যুক্তিসঙ্গত আচরণ ইত্যাদি।
◊ অপূর্ণ প্রতিযোগিতামূলক বাজারের বৈশিষ্ট্য কি কি ? উ: স্বল্প সংখ্যক ক্রেতা-বিক্রেতা, বিভিন্ন দ্রব্য, ক্রেতাদের অজ্ঞতা দামের পার্থক্য, অযৌক্তিক আচরণ ইত্যাদি।
◊ সময়ের ভিত্তিতে উৎপাদন ব্যয় কত প্রকার ? উ: দুই প্রকার। যথা- ১) স্বল্পকালীন উৎপাদন ব্যয়, ২) দীর্ঘকালীন উৎপাদন ব্যয়।

জাতীয় আয় ও এর বণ্টন

◊ বাংলাদেশে জাতীয় আয় পরিমাপে কোন পদ্ধতি অনুসরণ করা হয় ? উ: উৎপাদন পদ্ধতি ও আয় পদ্ধতি।
◊ একটি নির্দিষ্ট সময়ে যে পরিমাণ দ্রব্য সামগ্রী ও সেবাকর্ম উৎপাদিত হয় তাকে কি বলে ? উ: জাতীয় উৎপাদন।
◊ জাতীয় উৎপাদন বাজার দামে প্রকাশিত হলে তাকে কি বলে ? উ: জাতীয় আয়।
◊ মোট জাতীয় আয় – উ: খাজনা + মজুরী + সুন্দ + মুনাফা।
◊ “National Income is the money of the annual flow of goods and services in an economy” – কে বলেছেন ? উ: স্যামুয়েলসন।
◊ “জাতীয় আয় হলো বিদেশ হতে প্রাপ্ত আয়সহ সমাজের বৈদেশিক আয়ের সে অংশ যা অর্থ দ্বারা পরিমাপ করা যায় ” – কার উক্তি ? উ: অধ্যাপক পিশু।
◊ “জাতীয় আয় হলো এক বছর কোন দেশের উৎপাদন ব্যবস্থা হতে ভোক্তাদের জন্য প্রাপ্ত দ্রব্য ও সেবার নীট উৎপাদন প্রবাহ” – উ: কুজনেটস।
◊ নীট জাতীয় উৎপাদনকে আর্থিক মূল্যে প্রকাশ করা হলে তাকে কি বলে ? উ: নীট।
◊ জাতীয় আয় মোট জাতীয় উৎপাদন কি ? উ: মোট জাতীয় উৎপাদান (G.N.P)।
◊ নীট জাতীয় উৎপাদন (N.N.P) + অবচয় জনিত ব্যয়।
◊ নীট জাতীয় উৎপাদন কি ? উ: নীট জাতীয় উৎপাদন অবচয়জনিত ব্যয়।
◊ জাতীয় আয় পরিমাপের পদ্ধতি কয়টি ? উ: তিনটি। যথা: ১) উৎপাদন পদ্ধতি, ২) আয় পদ্ধতি, ৩) ব্যয় পদ্ধতি।
◊ মোট দেশজ উৎপাদন কি ? উ: একটি নির্দিষ্ট অর্থ বছরে একটি দেশের ভৌগোলিক সীমারেখার মধ্যে দেশী বিদেশী নাগরিকগণ যে পরিমাণ দ্রব্য ও সেবা উৎপাদন করে তার আর্থিক মূল্যকে মোট দেশজ উৎপাদন বলে।
◊ সমীকরণের সাহায্যে কিভাবে মোট দেশজ উৎপাদনকে দেখানো যায় ? উ: মোট দেশজ উৎপাদন (G.D.P) নীট দেশজ উৎপাদন + অবচয় জনিত ব্যয়।
◊ নীট দেশজ উৎপাদন কি ? উ: নীট দেশজ উৎপাদন (N.D.P + G.D.P – DA).
◊ উৎপাদন মূল্যে জাতীয় উৎপাদন কখন পাওয়া যায় ? উ: মোট জাতীয় আয় হতে পরোক্ষ কর বাদ দিলে।
◊ জাতীয় আয় পরিমাপের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ কোন পদ্ধতি অবলম্বন করে ? উ: একই সময়ে উৎপাদন পদ্ধতি ও আয় পদ্ধতি।
◊ অর্থনীতির সঠিক অবস্থা মূল্যায়ন কিভাবে সম্ভব ? উ: জাতীয় আয়ের পরিসংখ্যান থেকে।
◊ জাতীয় আয়ের সমীকরণটি কি ? উ: Y = C + I + G
◊ জাতীয় আয় উৎপন্নের সূত্র কোনটি ? উ: G.N.P = G.D.P + (X – M)
◊ শূন্য আয় উৎপাদন কখন পাওয়া যাবে ? উ: শূন্য দ্রব্য উৎপাদনকে শূন্য আয় দ্বারা গুন করলে।
◊ বণ্টনের আধুনিক তত্ত্ব কি ? উ: চাহিদা ও যোগানের মাধ্যমে উপকরণের মূল্য নির্ধারনকে বুঝায়।
◊ সমাজতন্ত্রে জাতীয় আয় বন্টনে কোন মূলনীতি অনুসরণ করা হয় ? উ: প্রত্যেকেই তার সামর্থ্য অনুযায়ী কাজ করবে এবং কার্যানুযায়ী পারিশ্রমিক পাবে।
◊ বণ্টনের উৎপাদন ক্ষমতা তত্ত্বটি কোন ধরনের অর্থনীতিবিদরা ব্যাখ্যা করেন ? উ: New Classical অর্থনীতিবিদরা।
◊ আয় পদ্ধতি কিসের ক্ষেত্রে অনুসরণ করা হয় ? উ: চাকুরীর ক্ষেত্রে।
◊ জাতীয় আয় বন্টন সম্পর্কে কোন তত্ত্বটি বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য ? উ: বণ্টনের শূন্য উৎপাদন ক্ষমতা তত্ত্ব।
◊ বন্টনের শূন্য উৎপাদন ক্ষমতা তত্ত্বটি কত সালে প্রকাশিত হয় ? উ: ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষে।
◊ শূন্য দ্রব্য উৎপাদনকে কি বলে ? উ: শূন্য উৎপাদন।
◊ কোন দেশে উৎপাদিত সকল পণ্য সামগ্রীর অর্থমূল্য বা বিনিময় মূল্য হিসাবের মাধ্যমে জাতীয় আয় গণনা করা হয় কোন পদ্ধতিতে ? উ: উৎপাদন পদ্ধতিতে।
◊ জমির খাজনা, শ্রমিকের মজুরী, মূলধনের সুদ এবং সংগঠনের মুনাফা প্রভৃতি যোগ করে জাতীয় আয় পরিমাপ করা হয় কোন পদ্ধতিতে ? উ: আয় পদ্ধতিতে।
◊ জাতীয় আয় বণ্টনে আধুনিক তত্ত্ব নামে পরিচিত- উ: চাহিদা ও যোগান তত্ত্ব।
◊ সাম্যবাদী স্তরে কোন মূলনীতি অনুসরণ করা হয় ? উ: : প্রত্যেকে তার সামর্থ অনুযায়ী কাজ করবে এবং প্রয়োজন অনুযায়ী পারিশ্রমিক পাবে।

Recent General Knowledge in University Admission Tests Part 05
Recent General Knowledge in University Admission Tests Part 05

খাজনা

◊ নিম খাজনা তত্ত্বের প্রবর্তক কে ? উ: অধ্যাপক মার্শাল।
◊ শূন্য জমির খাজনা কত ? উ: শূন্য।
◊ “জমি ও অন্যান্য প্রাকৃতিক সম্পদ হতে যে আয় হয় তাকে খাজনা বলে” কার উক্তি ? উ: মার্শাল।
◊ শুধুমাত্র জমি ব্যবহারের জন্য জমির মালিককে যে অর্থ দেওয়া হয় তাকে কি বলে ? উ: অর্থনৈতিক খাজনা/জমি খাজনা।
◊ “খাজনা জমির উৎপাদনের সে অংশ যা জমির মৌলিক ও অক্ষয় শক্তি ব্যবহারের জন্য জমির মালিককে দেওয়া হয়”। কার উক্তি ? উ ; Ricardo.
◊ “খাজনা দামের অন্তর্ভূক্ত হয় খাজনা হলো উৎপাদন খরচের উপর উদ্বৃত্ত আয়” বলেছেন- উ: Ricardo.
◊ মোট খাজনা কি ? উ: মোট খাজনা = জমির বিশুদ্ধ খাজনা + মজুরী + সুদ + মুনাফা।
◊ নীট/অর্থনৈতিক খাজনা কি ? উ: অর্থনৈতিক খাজনা = মোট খাজনা = (সুদ + মজুরী + মুনাফা)।
◊ “কৃষকেরা জমির উর্ব্বরতার চেয়ে অবস্থানকে গুরুত্ব দেয়, চাষের আগে মানুষ জমির অবস্থানগত গুরুত্ব বিবেচনা করে” কার উক্তি ? উ: কেরী ও রশার।
◊ রিকার্ডো জমির খাজনা সম্পর্কে যে তত্ত্ব প্রকাশ করেন তা কি নামে পরিচিত ? উ: রিকার্ডোর খাজনা তত্ত্ব।
◊ রিকার্ডোর খাজনা তত্ত্ব কত সালে প্রকাশিত হয় ? উ: উনিবিংশ শতাব্দীর প্রথম দিকে।
◊ রিকার্ডোর মতে জমি কত প্রকার ? উ: তিন প্রকার।
◊ তৃতীয় শ্রেণীর জমিকে রিকার্ডো কি নামে অভিহিত করেছেন ? উ: শূন্য জমি।
◊ শূন্য জমির কোন খাজনা নেই বলে একে কি বলে ? উ: খাজনা বিহীন জমি।
◊ ভূমির চাহিদাকে কি বলে ? উ: উদ্ভুত চাহিদা।
◊ জমির উর্বরতা শক্তির পার্থক্যের কারনে খাজনার উৎপত্তিহয় বলে একে কি বলে ? উ: পার্থক্য মূলক খাজনা।
◊ “দাম খাজনাকে প্রভাবিত করে, কিন্তু খাজনা দামকে প্রভাবিত করে না” কে বলেছেন ? উ: রিকার্ডো।
◊ “খাজনা দাম নির্ধারণকারী ব্যয় হবে কি না তা নির্ভর করে বিষয়টি কোন দৃষ্টিকোণ থেকে বিবেচনা করা হবে” উক্তিটি কার ? উ: স্যামুয়েলসনের নিম খাজনা কী ? উ: স্বল্পকালীন বিষয়।
◊ “যে জমি থেকে কোন খাজনা পাওয়া যায় না সেটাকে শূন্য জমি বলে” কার উক্তি ? উ: রিকার্ডোর।
◊ খাজনার ক্ষেত্রে কয়টি মতবাদ আছে ? উ: ২ টি। যথা- ১) রিকার্ডোর মতবাদ, ২) আধুনিক মতবাদ।

মজুরী

◊ চুক্তির অধিনে শ্রমিক কায়িক ও মানসিক পরিশ্রম করে যে পারিশ্রমিক পায় তাকে কি বলে ? উ: মজুরী।
◊ “চুক্তির অধীনে কাজ করার জন্য নিয়োগকর্তা যে অর্থ শ্রমিককে প্রদান করে তাকে মজুরী বলে” উক্তিটি কার ? উ: Benham.
◊ শ্রমিক ধরনের শ্রমের জন্য পারিশ্রমিক পায় ? উ: ২ ধরনের। যথা: ১) সময়ভিত্তিক মজুরী, ২) কর্ম ভিত্তিক মজুরী।
◊ শ্রমিকের সময়ের ভিত্তিতে যে মজুরী দেয়া হয় তাকে কি বলে ? উ: সময়ভিত্তিক মজুরী।
◊ শ্রমিকের কাজের ভিত্তিতে যে মজুরী দেওয়া হয় তাকে কি বলে ? উ: কর্ম ভিত্তিক মজুরী।
◊ মজুরী কত প্রকার ও কি কি ? উ: ২ প্রকার। যথা: ১) আর্থিক মজুরী, ২) প্রকৃত মজুরী।
◊ মজুরী নির্ধারক তত্ত্ব সমূহ কি কি ? উ: ১) ক্ল্যাসিক্যাল তত্ত্ব, ২) নিউ ক্লাসিক্যাল তত্ত্ব, ৩) আধুনিক তত্ত্ব।
◊ ক্ল্যাসিক্যাল তত্ত্ব কি কি ? উ: ১) জীবনধারণ উপযোগী তত্ত্ব, ২) জীবন যাত্রার মান তত্ত্ব, ৩) মজুরী তহবিল তত্ত্ব।
◊ আর্থিক মজুরী পরিমাপের মাপকাঠি হলো কি ? উ: অর্থ।
◊ আর্থিক মজুরী প্রভাবিত হয় কিসের দ্বারা ? উ: দাম স্তর দ্বারা।
◊ প্রকৃত মজুরী পরিমাপের মাপকাঠি কি ? উ: দ্রব্য ও সেবা।
◊ জীবন ধারণ উপযোগী তত্ত্বটি কারা প্রচার করেন ? উ: ফিজিওক্রাটস নামক অর্থনীতিবিদগণ।
◊ জীবন ধারণ উপযোগী তত্ত্বটি কত সালে প্রকাশিত হয় ? উ: ঊনবিংশ শতাব্দীতে।
◊ জীবন ধারণ উপযোগি তত্ত্বটি কিসের উপর ভিত্তি করে গড়ে উঠেছে ? উ: ম্যালথাসের জনসংখ্যা তত্ত্বের উপর।
◊ জীবন ধারন তত্ত্বের সংশোধিত রূপ কোনটি ? উ: জীবন যাত্রার মান তত্ত্ব।
◊ মজুরীর আধুনিক তত্ত্বকে কি বলা হয় ? উ: চাহিদা ও যোগান তত্ত্ব।
◊ “শ্রমিক সংঘ হলো চাকুরীর বর্তমান অবস্থা বজায় রাখা কিন্তু অবস্থার উন্নতির জন্য শ্রমজীবিদের স্থায়ী সংগঠন।” উক্তিটি কার ? উ: সিডনী ও বেট্রিক ওয়েব।

সুদ ও মুনাফা

◊ সুদকে কি বলা হয় ? উ: অপেক্ষার পারিতোষিক।
◊ নির্দিষ্ট সময়ের জন্য নগদ অর্থ হাত ছাড়া করার পারিতোষিক হল সুদ। উক্তিটি কার ? উ: লর্ড কেইন্স।
◊ ঋণযোগ্য তহবিল ব্যবহারের দামকে কি বলে ? উ: সুদ।
◊ সুদকে কয় ভাগে ভাগ করা যায় ? উ: দুই ভাগে। যথা: ১) মোট সুদ, ২) নীট সুদ।
◊ “কোন বাজারে মূলধন ব্যবহারের জন্য যে দাম দিতে হয় তাকে সুদ বলা হয়।” কে বলেছেন ? উ: অধ্যাপক মার্শাল।
◊ ঋণ ব্যবহারের জন্য ঋণ গ্রহীতা ঋণের মালিককে আসলের অতিরিক্ত যে পরিমাণ অর্থ প্রদান করে থাকে কি বলে ? উ: মোট সুদ।
◊ শুধু মূলধন ব্যবহারের জন্য দেয় অর্থের পরিমাণকে কি বলে ? উ: নীট সুদ।
◊ “সুদ গ্রহণকে অন্যায়, অস্বাভাবিক ও প্রকৃতির নিয়ম বিরুদ্ধ” কে মনে করেন ? উ: এরিস্টটল।
◊ “মূলধন সঞ্চয় হতে সৃষ্টি” কার উক্তি ? উ: অধ্যাপক সিনিয়র।
◊ কোন অর্থনীতিবিদ ভবিষ্যৎ ভোগ অপেক্ষা বর্তমান ভোগ অধিক গুরুত্বপূর্ণ মনে করেন ? উ: অষ্ট্রীয় অর্থবিজ্ঞানী বমওয়ার্ক।
◊ কার মতে মানুষ ভবিষ্যৎ অপেক্ষা বর্তমানকে অধিক পছন্দ করে ? উ: অর্থনীতিবিদ ফিসার।
◊ “মানুষ সর্বদা নগদ অর্থ হাতে রাখতে পছন্দ করে” কার উক্তি ? উ: লর্ড কেইনস্।
◊ সুদের তত্ত্ব কি কি ? উ: ১) ক্ল্যাসিক্যাল-চাহিদা ও যোগান তত্ত্ব। ২) নিউ-ক্ল্যাসিক্যাল-সুদের ঋণযোগ্য তহবিল তত্ত্ব। ৩) আধুনিক নগদ পছন্দ তত্ত্ব।
◊ ঋণ যোগ্য তহবিলের মোট চাহিদার সূত্রটি কি ? উ: ঋণযোগ্য তহবিলের মোট চাহিদা (DL) = বিনিয়োগ (I) + আসল নগদ তহবিল (H) + ভোগ ব্যয় (C) Or , DL = I + H + C
◊ ঋণযোগ্য তহবিলের যোগানের সূত্রটি কি ? উ: ঋণযোগ্য তহবিলের মোট যোগান = সঞ্চয় ব্যাংক ঋণ + আসল নগদবিল + অবিনিয়োগ or, SL= S + BM + DH + DI
◊ নগদ পছন্দ তত্ত্ব কি ? উ: Lord keynes তার The General theory of Employment, Interest and money নামক বিখ্যাত গ্রন্থে সুদ সম্পর্কে ধারণা প্রদান করেন, তাই একে সুদের নগদ পছন্দ তত্ত্ব বলা হয়
◊ কেইনসের মতে কয়টি কারণে মানুষের নগদ পছন্দ তত্ত্বের চাহিদা দেখা যায় ? উ: ৩ টি যথাঃ ১) লেন-দেনের উদ্দেশ্যে, ২) সতর্কতামূলক উদ্দেশ্যে, ৩) ফটকা কারবারের উদ্দেশ্যে।
◊ উদ্যোক্তাদের মজুরী হল লাভ বা মুনাফা। কে বলেছেন ? উ: অধ্যাপক মার্শাল।
◊ মুনাফার সুত্রটি কি ? উ: মুনাফা = মোট আয়- মোট ব্যয়।
◊ মুনাফা কত প্রকার ও কি কি ? উ: ২ প্রকার। যথা: ১) মোট মুনাফা, ২) নীট মুনাফা।
◊ মুনাফা হলো ঝুঁকি বহনের পুরষ্কার কার উক্তি ? উ: অর্থনীতিবিদ হলি।
◊ অনিশ্চয়তার পারিতোষিক হলো মুনাফা কে বলেছেন ? উ: মি. নাইট।
◊ মুনাফার খাজনা তত্ত্বের প্রবক্তা কে ? উ: অর্থনীতিবিদ ওয়াকার।
◊ মুনাফার ঝুঁকি বহন তত্ত্বের প্রবক্তা কে ? উ: অধ্যাপক হলি।
◊ মুনাফার মজুরী তত্ত্বের প্রবর্তক কে ? উ: টাউসিগ ও ডেভেন পোর্ট।
◊ মুনাফার অনিশ্চয়তার বহন তত্ত্বের প্রবক্তা কে ? উ: মি. নাইট।
◊ মুনাফার গতিশীল তত্ত্বের উদ্ভাবক কে ? উ: মার্কিন অর্থনীতিবিদ জে. বি.সে।
◊ মুনাফাকে ঝুঁকি গ্রহণের পুরস্কার না বলে ঝুঁকি এড়াবার পুরস্কার বলেছেন কে ? উ: অধ্যাপক Carver.
◊ অতি মুনাফা কি ? উ: Total Revenue = Total Cost.
◊ স্বাভাবিক মুনাফা কখন হবে ? উ: TR – TC > O হলে
◊ ওয়াকারের মতে উৎপত্তির দিক থেকে মুনাফা কিসের অনুরূপ ? উ: খাজনার।
◊ অধ্যাপক নাইটের মতে কারবারে কয় ধরনের ঝুঁকি থাকে ? উ: ২ ধরনের। যথা: ১) নিশ্চিত, ২) অনিশ্চিত।
◊ কেবল গতিশীল সমাজেই মুনাফার উদ্ভব হয় কে বলেছেন ? উ: জে. বি. সার্ক।

বিনিময় প্রথা ও অর্থ

◊ দ্রব্যের বিনিময়ে দ্রব্য পরিবর্তনের প্রথাকে কি বলে ? উ: দ্রব্য বিনিময় প্রথা।
◊ দ্রব্য বিনিময় প্রথা প্রচলিত থাকার পিছনে কারন কয়টি ? উ: দুইটি। ক) উৎপাদন ক্ষেত্রে শ্রম বিভাগের প্রবর্তনের ফলে ব্যক্তিক স্বাধীনতা হ্রাস ও পরিবর্তনশীল। খ) সর্বজন গ্রহীত এমন কোন বস্তু ছিল না যা বিনিময়ের মাধ্যম হিসাবে ব্যবহার করা যায়।
◊ দ্রব্য বিনিময় প্রথা কার্যকর হওয়ার শর্ত কয়টি ? উ: ৩ টি। যথা: ১) অন্যের দ্রব্য গ্রহণের আকাঙ্ক্ষা, ২) নিজের দ্রব্য ত্যাগের ইচ্ছা, ৩) অন্য দ্রব্য হতে প্রাপ্ত উপযোগ ও নিজ দ্রব্য ত্যাগের উপযোগের ক্ষতি সমান।
◊ Money is what money does উক্তিটি কার ? উ: Walker.
◊ রাষ্ট্র কর্তৃক ঘোষিত এবং আইন দ্বারা স্বীকৃত বস্তুই অর্থ উক্তিটি কার ? উ: অধ্যাপক ন্যাপ।
◊ অর্থ এমন একটি জিনিস যা সাধারণভাবে দেনা পাওনা মেটাতে এবং ঋন পরিশোধ করতে ব্যবহৃত কার উক্তি ? উ: অর্থনীতিবিদ কোল।
◊ অর্থের কার্যাবলী কয় ভাগে ভাগ করা যায় ? উ: ৩ ভাগে।
যথা: ক) অর্থের বাণিজ্যিক কার্যাবলী, খ) সামাজিক কার্যাবলী, গ) মনস্তাত্ত্বিক কার্যাবলী।
◊ আধুনিক যুগকে বলা হয় ? উ: অর্থের যুগ
◊ অর্থের ক্রমবিকাশ গুলি কি কি ?
উ: ১) দ্রব্য বিনিময় প্রথা, ২) দ্রব্য মুদ্রা, ৩) মূল্যবান ধাতু, ৪) ধাতব মুদ্রা, ৫) কাগজী মুদ্রা, ৬) ঋণ পত্র।
◊ অর্থ কত প্রকার ? উ: ২ প্রকার। ক) হিসেবী মুদ্রা, খ) প্রকৃত মুদ্ৰা।
◊ যে মুদ্রার সাহায্যে ক্রয়, বিক্রয় ও ঋণের হিসাব রাখা হয় (যেমন বাংলাদেশের মুদ্রার নাম টাকা) তাকে কি বলে ? উ: হিসেবী মুদ্রা।
◊ যে মুদ্রার প্রকৃত পক্ষে ক্রয় বিক্রয় ও দেনা পাওনার হিসাব রাখা হয়, তাকে কি বলে ? উ: প্রকৃত মুদ্রা। যেমন: ৫০০, ১০০০ টাকার নোট।
◊ প্রকৃত মুদ্রা কত প্রকার ? উ: দুই প্রকার। যথা: ১) সরকারী মুদ্রা, ২) ব্যাংক মুদ্রা।
◊ চেক, ব্যাংক ড্রাফ্‌ট কোন ধরনের মুদ্রা ? উ: ব্যাংক মুদ্রা।
◊ সরকারী মুদ্রা কত প্রকার ? উ: দুই প্রকার। যথা: ১) ধাতব মুদ্রা, ২) কাগজী মুদ্রা।
◊ ধাতব মুদ্রা কত প্রকার ? উ: দুই প্রকার। যথা: ১) প্রামাণিক মুদ্রা, ২) প্রতীক মুদ্রা।
◊ ৫, ১০ ও ৫০ পয়সার মুদ্রা কোন ধরণের মুদ্রা ? উ: প্রতীক মুদ্রা।
◊ কাগজী মুদ্রা কত প্রকার ও কি কি ? উ: তিন প্রকার। যথা: ১) প্রতিনিধিত্ব মূলক মুদ্রা, ২) অপরিবর্তনীয় মুদ্রা, ৩) পরিবর্তনীয় মুদ্রা।
◊ বাংলাদেশের এক টাকার নোট কোন ধরণের মুদ্রা ? উ: অপরিবর্তনীয় মুদ্রা।
◊ বাংলাদেশে ১ টাকার নোট ছাড়া বাকি সব নোট কোন ধরনের মুদ্রা ? উ: পরিবর্তনীয় মুদ্রা।
◊ সরকারী মুদ্রাকে পুনরায় আবার কয় ভাগে ভাগ করা যায় ? উ: দুই ভাগে। যথাঃ ১) বিহিত মুদ্রা, ২) ঐচ্ছিক মুদ্রা।
◊ বিহিত মুদ্রা কত প্রকার ও কি কি ? উ: দুই প্রকার। যথা: ১) অসীম মুদ্রা, ২) সসীম মুদ্রা।
◊ ৫০০, ১০০, ৫০ ও ১০ টাকার নোট কোন ধরনের মুদ্রা ? উ: অসীম মুদ্রা।
◊ ৫০, ১০, ২৫ পয়সার মুদ্রা কোন ধরনের মুদ্রা ? উ: সসীম মুদ্রা।
◊ উপরোক্ত মুদ্রা ছাড়া আর কয় ধরনের মুদ্রা আছে ? উ: তিন প্রকার। যথা: ১) আদিষ্ট মুদ্রা, ২) পরিচালিত মুদ্রা, ৩) প্রায় মুদ্রা।
◊ ধাতব মুদ্রার মান কত প্রকার ও কি কি ? উ: দুই প্রকার। যথা: ১) এক ধাতুমান ২) দ্বিধাতুমান।
◊ প্রাথমিক মুদ্রা কোথায় ছিল ? উ: ইংল্যান্ডে।
◊ একধাতুমান কত প্রকার ও কি কি ? উ: ২ প্রকার। যথা: ১) স্বর্ণ মান, ২) রৌপ্য মান।
◊ স্বর্ণমান কত প্রকার ? উ: পাঁচ প্রকার।
যথা: ১) বিশুদ্ধ স্বর্ণমান, ২) স্বর্ণ পিন্ডমান, ৩) স্বর্ণ বিনিময়, ৪) স্বর্ণ মজুদ, ৫) স্বর্ণ সমতামান।
◊ “একই দেশে একই সঙ্গে উৎকৃষ্ট মুদ্রা ও নিকৃষ্ট মুদ্ৰা প্ৰচলিত থাকলে নিকৃষ্ট মুদ্রা উৎকৃষ্ট মুদ্রাকে বাজার হতে বিতাড়িত করে” কার উক্তি ? উ: ইংল্যান্ডের রানী ১ ম এলিজাবেথের অর্থনৈতিক উপদেষ্টা SIR Thomas Gresham.
◊ ধাতব মুদ্রামান অপেক্ষা কোন মুদ্রামানের মুদ্রা স্ফীতির আশংকা বেশি ? উ: কাগজী মুদ্রা মানের।
◊ অর্থের পরিমাণ তত্ত্বের জনক কে ? উ: আরভিং ফিশার।
◊ “সূচককে একটি বিশেষ বৈশিষ্ট্য পূর্ণ গড়” বলেছেন কে ? উ: অধ্যাপক ব্লেয়ার।
◊ গৃহক সংখ্যা প্রণয়নের ১ ম পর্যায় কি ? উ: ভিত্তি বছর নির্ণয়।
◊ সূচক সংখ্যা প্রণয়নের ২ য় পর্যায় কি ? উ: দ্রব্য নির্বাচন।
◊ সূচক সংখ্যা প্রণয়নের ৩ য় পর্যায় কি ? উ: দ্রব্যের দাম সংগ্রহ।
◊ সূচক সংখ্যা প্রণয়নের ৪ র্থ পর্যায় কি ? উ: আপেক্ষিক দাম নির্ণয়।
◊ সূচক সংখ্যা প্রণয়নের ৫ ম পর্যায় কি ? উ: আপেক্ষিক দামের গড় নির্ণয়।
◊ সূচক সংখ্যা কত প্রকার ও কি কি ? উ ; দুই প্রকার। যথা: ক) সাধারণ সূচক সংখ্যা, খ) গুরুত্ব সংযুক্ত সূচক সংখ্যা।
◊ “দ্রব্য সামগ্রীর যোগানের তুলনায় অর্থের যোগান বেশি হলে মুদ্রাস্ফীতি দেখা দিবে” কার উক্তি ? উ: কেমেরার, গ্রেগরী হট্রে।
◊ মুদ্রাস্ফীতি কত প্রকার ? উ: তিন প্রকার। যথা- ১) মৃদু মুদ্রাস্ফীতি, ২) পদসঞ্চার মুদ্রাস্ফীতি, ৩) অতি মুদ্রাস্ফীতি
◊ মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ কয় ভাগে ভাগ করা যায় ? উ: তিন ভাগে।
যথা: ১) আর্থিক পদ্ধতি, ২) রাজস্ব পদ্ধতি, ৩) প্রত্যক্ষ নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি
◊ অর্থের মূল্য পরিবর্তন কি ভাবে হয় ? উ: ক্রয় ক্ষমতার পরিবর্তনের সাথে।
◊ “মুদ্রাস্ফীতি অন্যায় ও মুদ্রা সংকোচন অসমীচীন” কার উক্তি ? উ: Lord Keynes.
◊ বিশুদ্ধ স্বর্ণমান প্রচলিত ছিল কবে ? উ: প্রথম বিশ্বযুদ্ধের আগে ও স্বর্ণ বিনিময় প্রথা প্রথম চালু হয় কোথায় এবং কত সালে ? উ: বৃটেনে, ১৯৭৭ সালে।
◊ আধুনিক যুগকে কি মুদ্রার যুগ বলা হয় ? উ: কাগজী মুদ্রার।
◊ স্বর্ণ মজুত মান কোথায় প্রচলিত ছিল ? উ: যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স ও ইংল্যান্ডে।
◊ অর্থের মূল্য বলতে কি বুঝায় ? উ: অর্থের ক্রয় ক্ষমতা।
◊ দ্রব্য মূল্য ও অর্থের মূল্যের মধ্যে কোন ধরণের সম্পর্ক বিদ্যামান ? উ: বিপরীত।
◊ যে মুদ্রাকে দেশের বৈধ মুদ্রা হিসেবে ঘোষনা করা হয় এবং বিনিময় মাধ্যম হিসেবে গ্রহণযোগ্য তাকে কি বলে ? উ: বিহিত মুদ্রা।
◊ প্রাইজ বন্ড, সঞ্চয় পত্র, ট্রেজারী বিল, সরকারী বন্ড, ইত্যাদি কোন ধরণের মুদ্রা ? উ: প্রায় মুদ্রা।
◊ নিকৃষ্ট মুদ্রা উৎকৃষ্ট মুদ্রাকে কয়টি উপায়ে বাজার হতে বিতাড়িত করে ? উ: তিনটি।
যথা: ১) জমানো, ২) গলানো, ৩) বৈদেশিক দেনা পরিশোধ।
◊ কোন পুস্তকে অর্থের তত্ত্ব প্রকাশ করা হয় ? উ: Punchasing power of money (এটি প্রকাশিত হয় ১৯১১ সালে)।

সরকারী অর্থ ব্যবস্থা ও কর

◊ করের কানুন এর প্রবর্তক কে ? উ: এডাম স্মিথ।
◊ বাজেট শব্দটি প্রথম কবে ব্যবহৃত হয় ? উ: ১৯৩৩ সালে।
◊ সরকারী অর্থ ব্যবস্থা কি ? উ: রাষ্ট্রের আয় ব্যয়ের হিসাব।
◊ ব্যক্তি বিশেষের আয় ব্যয়কে কি বলে ? উ: ব্যক্তিগত অর্থ ব্যবস্থা।
◊ “সরকারী অর্থ ব্যবস্থা হলো রাষ্ট্রীয় ব্যয় ও রাষ্ট্রীয় আয়ের প্রকৃতি ও নীতির অনুসন্ধান।” উক্তিটি কার ? উ: মি. আর মিটেজ স্মিথ।
◊ “সরকারী অর্থব্যবস্থা, সরকারের আয়-ব্যয় এবং এদের একটির সাথে অন্যটির সমন্বয় সাধন সম্পর্কে আলোচনা করে” কার উক্তি ? উ: অধ্যাপক ডালটন।
◊ ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষ ভাগে সরকারী অর্থ ব্যবস্থা সম্পর্কে কোন বাক্যটি প্রযোজ্য ছিল যে সরকার কম শাসন করে সেই উত্তম।
◊ সরকারী আয়ের উৎস কত প্রকার ? উ: দুই প্রকার। যথা: ১) কর হতে আয়, ২) কর বহির্ভূত আয়।
◊ দেশের সামগ্রিক চাহিদা বা সামগ্রিক ব্যয়ের কয়টি অংক আছে ? উ: তিনটি।
◊ সরকার কয় প্রকার কর আদায় করে ? উ: দুই প্রকার। যথা: ১) প্রত্যক্ষ কর, ২) পরোক্ষ কর।
◊ কর বহির্ভূত আয় কি ? উ: সরকারের নিকট হতে সুযোগ সুবিধা আদায়ের জন্য যা প্রদান করা হয়।
যেমন- ক) ফি, খ) সরকারী ঋণ, গ) বাণিজ্যিক আয়, ঘ) ঋণের সুদ, ঙ) টাকশাল হতে
◊ এ্যাডাম স্মিথ করের কয়টি কানুনের কথা উল্লেখ করেছেন ? উ: ৪ টি।
যথা: ক) সমতার কানুন, খ) নিশ্চয়তার কানুন, গ) সুবিধার কানুন, ঘ) মিতব্যয়িতার কানুন
◊ কয়টি দৃষ্টিভঙ্গি থেকে কর প্রদান ক্ষমতা যাচাই করা হয় ? উ: দুটি। যথা: ১) ব্যক্তিক দৃষ্টিভঙ্গি, ২) নৈর্ব্যক্তিক দৃষ্টিভঙ্গি
◊ ব্যক্তিক দৃষ্টিভঙ্গি কত প্রকার ও কি কি ? উ: তিন প্রকার।
যথা: ১) সমতা ত্যাগনীতি, ২) আনুপাতিক ত্যাগনীতি, ৩) ন্যূনতম ত্যাগনীতি
◊ কর প্রদানের নৈর্ব্যক্তিক দৃষ্টিভঙ্গির ক্ষেত্রে অর্থনীতিবিদগন কয়টি বিষয়ের কথা উল্লেখ করেন ? উ: তিনটি।
যথা: ক) সম্পত্তি, খ) ভোগ ব্যয়, গ) আয়
◊ যে করের প্রাথমিক বোঝা এবং আর্থিক বোঝা একই ব্যক্তির উপর পড়ে তাকে কি বলে ? উ: প্রত্যক্ষ কর।
◊ যে করের করঘাত ও করপাত বিভিন্ন ব্যক্তির উপর পড়ে তাকে কি বলে ? উ: পরোক্ষ কর
◊ করের প্রাথমিক অংশকে কি বলে ? উ: করঘাত করের চূড়ান্ত অবস্থাকে কি বলে ? উ: করপাত
◊ দ্রব্য সামগ্রী বিক্রয়ের উপর যে কর ধার্য করা হয় তাকে কি বলে ? উ: বিক্রয় কর
◊ যে সব দ্রব্যের উৎপাদন ও ভোগ দেশের মধ্যে সম্পন্ন হয় সে সব দ্রব্যের উপর আরোপিত করকে কি বলে ? উ: আবগারী শুল্ক।
◊ আবগারী শুল্ক কি ? উ: পরোক্ষ কর।
◊ আয়ের স্তর বাড়ার সাথে সাথে কর ধার্যের হারও ক্রমান্বয়ে বাড়লে তাকে কি বলে ? উ: প্রগতিশীল কর।
◊ উচ্চস্তরের আয়ের উপর ক্রমশঃ কম হারে কর ধার্য করা হলে তাকে কি বলে ? উ: অধোগতিশীল কর।
◊ সরকারের এক বছরের সম্ভাব্য আয় ও ব্যয়ের খতিয়ানকে কি বলে ? উ: বাজেট বাজেট কত প্রকার ? উ: তিন প্রকার। যথা: ১) ভারসাম্য বাজেট, ২) উদ্বৃত্ত বাজেট, ৩) ঘাটতি বাজেট।
◊ সরকারের আয় ও ব্যয় সমান হলে তাকে কি বলে ? উ: ভারসাম্য বাজেট।
◊ সরকারের আয় অপেক্ষা ব্যয় বেশি হলে তাকে কি বলে ? উ: ঘাটতি বাজেট।
◊ সরকারের ব্যয় অপেক্ষা আয় বেশি হলে তাকে কি বলে ? উ: উদ্বৃত্ত বাজেট।

বৈদেশিক বিনিময় মুদ্রার অবমূল্যায়ন

◊ আন্তর্জাতিক বাণিজ্য গড়ে উঠেছে কিসের উপর ভিত্তি করে ? উ: ভৌগোলিক বিশেষীকরণের উপর।
◊ দেশের মধ্যে দুই পক্ষের মধ্যে সংগঠিত বাণিজ্যকে কি বলে ? উ: অভ্যন্তরীন বাণিজ্য।
◊ দুই বা ততোধিক সার্বভৌম দেশের মধ্যে দ্রব্য সামগ্রী ও সেবার আদান-প্রদান বা আমদানী-রপ্তানীকে কি বলে ? উ: আন্তর্জাতিক বাণিজ্য।
◊ অভ্যন্তরীন ও আন্তঃ বাণিজ্যের মধ্যে মৌলিক পার্থক্য রয়েছে কাদের মতে ? উ: Adam Smith, Ricardo প্রমুখ।
◊ আধুনিক অর্থনীতিবিদগনের মতে উভয় বাণিজ্যের মধ্যে গুনগত পার্থক্য না থাকলে ও কি রয়েছে ? উ: মাত্রাগত।
◊ তুলনামূলক খরচ তত্ত্বকে চরম ব্যয়ের পার্থক্যের সাহায্যে কে ব্যাখ্যা করেন ? উ: Adam Smith.
◊ খরচ তত্ত্বকে পরিমার্জিত রূপদান করেন কে ? উ: Ricardo.
◊ যখন আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের উপর বিধি নিষেধ আরোপ করা হয় তখন তাকে কি বলে ? উ: অবাধ বাণিজ্য।
◊ আন্তর্জাতিক বাণিজ্যকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য সরকার যে বিধি নিষেধ আরোপ করে তাকে কি বলে ? উ: সংরক্ষণ।
◊ সংরক্ষণ নীতির পক্ষে অন্যতম যুক্তি কি ? উ: শিশু শিল্প যুক্তি।
◊ ক্রয় ক্ষমতার সমগ্র তত্ত্বটি কে প্রচার করেন ? উ: গণ্ডস্বাভ ক্যাসেল।
◊ অবাধ বাণিজ্যের সমর্থক করা ছিলেন ? উ: Adam Smith, Ricardo.
◊ দৃশ্যমান রপ্তানী কি ? উ: রপ্তানীর মধ্যে যেগুলো বস্তুগত রপ্তানী থাকে। যেমন- যন্ত্রপাতি, খাদ্য দ্রব্য।
◊ লেনদেনের ভারসাম্যের খাত কত প্রকার ? উ: তিন প্রকার।
যথা: ১) চলতি হিসাব, ২) মূলধনী হিসাব, ৩) বৈদেশিক মুদ্রা হিসাব।
◊ বিনিময় প্রথা কয়টি মুদ্রা ব্যবস্থায় নির্ধারিত হয় ? উ: দুইটি।
যথা: ক) স্বর্ণমান অধীন, খ) অপরিবর্তনী কাগজী মুদ্রার অধীনে।
◊ অপরিবর্তনীয় কাগজী মুদ্রার অধীনে বৈদেশিক বিনিময় হার- উ: এতে দুইটি তত্ত্ব প্রচলিত রয়েছে।
১) ক্রয় ক্ষমতার সমতা তত্ত্ব, ২) চাহিদা ও যোগান তত্ত্ব।

ব্যাংক ব্যবস্থা

◊ বিশ্বের প্রথম ব্যাংক কোনটি ? উ: শান্সী ব্যাংক। (চীন)
◊ নিকাশ ঘর বলা হয় কাকে ? উ: কেন্দ্রীয় ব্যাংককে।
◊ অন্যান্য ব্যাংকের ব্যাংকার বলা হয় কাকে ? উ: কেন্দ্রীয় ব্যাংককে।
◊ বাংলাদেশ ব্যাংকের মোট শাখা কয়টি ? উ: ৯ টি।
◊ বীমা ব্যবসায় সর্বপ্রথম কোন বীমার প্রচলন ঘটে ? উ: নৌ-বীমা।
◊ আধুনিক অর্থনীতিতে একটি গুরুত্বপূর্ণ আর্থিক প্রতিষ্ঠান কোনটি উ: ব্যাংক।
◊ ব্যাংক শব্দের আভিধানিক অর্থ কি ? উ: স্তুপিকৃত কোন বস্তু বা ধনভাণ্ডার।
◊ অনেকের মতে ব্যাংক শব্দটি একটি জার্মান শব্দ হতে এসেছে- সে শব্দটি কি ? উ: Banck.
◊ ব্যাংক ইটালী ভাষায় কি নামে অভিহিত ? উ: Banco.
◊ Franka এর মতে ব্যাংক শব্দটি হতে এসেছে- উ: Bank-Bank’e হতে।
◊ Bank শব্দটি অর্থ কি ? উ: লম্বা টুল বা বেষ্ণ।
◊ বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নাম কি- উ: বাংলাদেশ ব্যাংক।
◊ জাপানের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নাম কি ? উ: ব্যাংক অব জাপান।
◊ ভারতের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নাম কি- উ: রিজার্ভ ব্যাংক অব ইন্ডিয়া।
◊ ব্রিটেনের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নাম কি- উ: ব্যাংক অব ইংল্যান্ড।
◊ বাণিজ্যিক ব্যাংকের কার্যাবলীকে কয় ভাগে ভাগ করা যায়- উ: ৩ ভাগে।
◊ বাণিজ্যিক ব্যাংক কয় ধরনের আমানত গ্রহণ করে ? উ: ৩ ধরনের।
◊ ব্যাংকের উদ্ধৃত্ত পত্রের বাম দিকে কি লেখা হয় ? উ: ব্যাংকের দায়।
◊ ব্যাংকের উদ্বৃত্ত পত্রের ডান দিকে কি লেখা হয়- উ: ব্যাংকের পাওনা।
◊ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পরিমাণগত ঋণ নিয়ন্ত্রণের গুরুত্বপূর্ণ কৌশল কোনটি ? উ: ব্যাংক হার ও খোলাবাজার নীতি।

পৌরনীতি ও সুশাসন পরিচিতি

◊ “Man is by nature a social and political being” কে বলেছেন ? উ: এরিস্টটল।
◊ পৌরনীতির প্রধান আলোচ্য বিষয়- উ: নাগরিক ও তার কার্যাবলি।
◊ Civies (পৌরনীতির) শব্দটি ল্যাটিন শব্দ Civis (নাগরিক) & Civitas (নগর রাষ্ট্র) থেকে উদ্ভূত।
◊ নাগরিকতার সাথে জড়িত সকল বিষয় নিয়ে যে শাস্ত্র আলোচনা করে তাকে পৌরনীতি বলে বলেছেন- উ: ই. এম. হোয়াইট।
◊ “ইতিহাস রাষ্ট্রবিজ্ঞানের গভীরতা দান করেছে” কে বলেছেন ? উ: উইলোবি।
◊ পৌরনীতির পরিধি – উ: নাগরিকতা বিষয়ক আলোচনা, নাগরিকের অধিকার ও কর্তব্য, মৌলিক সামাজিক প্রতিষ্ঠান, রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান, নাগরিকের অতীত বর্তমান ভবিষ্যৎ নিয়ে আলোচনা ইত্যাদি সুশাসন (Good Governance) ধারনার উদ্ভাবক বিশ্বব্যাংক (১৯৮৯ সালে)। সরকারের স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা এবং অংশগ্রহণের ভিত্তিতে শাসনকার্য পরিচালনাই সুশাসন।
◊ সুশাসনের মৌলিক অন্তরায় কি ? উ: দুর্নীতি।
◊ সুশাসনের বৈশিষ্ট্য ৮ টি । Accountability Transparent, Responsivensess, Equitable and inclusive, Effective and effcient, Rule of Law, Participatory, Consensus Oriented.

মূল্যবোধ

◊ মূল্যবোধ (Values) মানুষের সহজাত প্রবৃত্তি এটি মানুষের সামাজিক স্বীকৃত এমন কার্যক্রম বা আচরণ, যা সামগ্রিকভাবে প্রশংসিত হয়।
◊ Daniel H. Parker দুটি বিষয়ের নিরিখে মূল্যবোধকে বিভক্ত করেছেন।
১. বাস্তব জীবন ভিত্তিক মূল্যবোধ (যেমন – স্বাস্থ্য, জ্ঞান, ভালোবাসা, বন্ধুত্ব, প্রযুক্তিগত দক্ষতা, আকাঙ্ক্ষার নৈর্ব্যত্তিকতা),
২. কল্পনাপ্রসূথ মূল্যবোধ (যেমন – ধৰ্ম, কলা- (Art), খেলাধুলা ইত্যাদি)
◊ ইতিবাচক মূল্যবোধ হচ্ছে – সরকার, রাষ্ট্র ও গোষ্ঠী কর্তৃক স্বীকৃত মূল্যবোধ।
◊ পেশাগত দিক থেকে মূল্যবোধ ৮ প্রকার । যথা ১) অর্থনৈতিক মূল্যবোধ, ২) রাজনৈতিক মূল্যবোধ, ৩) সামাজিক মূল্যবোধ- (সহিষ্ণুতা, শিষ্টাচার, সততা, ন্যায়পরায়তা, ভ্রাতৃত্ববোধ), ৪) আধ্যাত্মিক মূল্যবোধ ৫) আধুনিক মূল্যবোধ ৬) নান্দনিক মূল্যবোধ (মানব মনের সুকোমল বৃত্তি প্রকাশের), ৭) ধর্মীয় মূল্যবোধ ৮) বস্তুগত
◊ মূল্যবোধ সামাজিক মূল্যবোধের বৈশিষ্ট্য আপেক্ষিকতা।
◊ মানুষের কাজের মানদন্ড মূল্যবোধ। মূল্যবোধ-ই মানুষের আচার-আচরনকে পরিমাপ ও নিয়ন্ত্রণ করে।

আইনের ধারণা

◊ আইন ফারসি শব্দ। ইংরেজি Law শব্দটি টিউটনিক শব্দ Lag (অপরিবর্তনীয়) থেকে এসেছে।
◊ “Law is the Passionless reason (আবেগহীন যুক্তি)” বলেছেন- উ: এরিস্টটল
◊ “Law is the command of state” বলেছেন- জন অস্টিন।
◊ অধ্যাপক হল্যান্ডের মতে আইন দুই প্রকার।
১. সরকারী আইন- যেমন: সাংবিধানিক বা শাসনতান্ত্রিক আইন, প্রশাসনিক আইন, ফৌজদারি আইন ও দন্ডবিধি।
২. বেসরকারী আইন। যেমন: চুক্তি, দলিল, বিবাহ সংক্রান্ত রীতি।
◊ সাধারণ আইনকে তিন শ্রেণীতে ভাগ করা হয়।
যথা: ১) সরকারী , ২) বেসরকারী , ৩) আন্তর্জাতিক

নৈতিকতা

◊ Virtue is knowledge বলেছেন- সক্রেটিস।
◊ Morality শব্দটি ল্যাটিন শব্দ।
◊ Moralitas (সঠিক আচরণ/চরিত্র) থেকে এসেছে।
◊ শুভ’র প্রতি সুনরাগ, অশুভ’র প্রতি বিরাগ হচ্ছে- নৈতিকতা।
◊ নৈতিকতার রক্ষাকবচ বিবেকের দংশন।
◊ নৈতিকতা প্রয়োগ করে না- রাষ্ট্র।
◊ নৈতিকতা হল অনির্দিষ্ট ও অস্পষ্ট।
◊ নৈতিকতা ও নীতিবোধের বিকাশ ঘটায় ভাল-মন্দ, ন্যায়-অন্যায়, উচিত-অনুচিত বোধ।
◊ নৈতিকতা একটি মানসিক বিষয় , নৈতিকতাহীনতা দন্ডনীয় অপরাধ নয়।
◊ আইন ও নৈতিকতার মধ্যে প্রথম পার্থক্য করেন- উ: ম্যাকিয়াভেলি।
◊ নীতিভ্রষ্ট ও নীতিহীন শাসক হলো অন্যতম পাপী বলেছেন- উ: করমচাঁদ গান্ধী।
◊ ধনতান্ত্রিক সমাজে প্রতিষ্ঠা লাভের ভিত্তি স্বার্থপরতা ও লোভ।

স্বাধীনতা

◊ Liberty (স্বাধীনতা) শব্দটি ল্যাটিন শব্দ Liber (মুক্ত) থেকে উদ্ভূত।
◊ যা উপভোগ করার ও সম্পন্ন করার যোগ্য তা উপভোগ ও সম্পন্ন করার ক্ষমতাকে স্বাধীনতা বলে বলেছেন- উ: টি. এইচ গ্রীন।
◊ স্বাধীনতার শ্রেণীবিভাগ ৫ টি। যথা:
১. ব্যক্তিগত – ধর্ম পালন, পারিবারিক গোপনীয়তা, পেশা বাছাইয়ের স্বাধীনতা
২. সামাজিক – চলাফেরা, জীবন রক্ষা, সম্পত্তি রক্ষার স্বাধীনতা
৩. অর্থনৈতিক স্বাধীনতা ৪. রাজনৈতিক স্বাধীনতা ৫. জাতীয় স্বাধীনতা
◊ Man is born free. But every where he is in chains” উক্তিটি করেছেন বলেছেন – রুশো।

সাম্য

◊ সাম্য হচ্ছে- উ: যে রূপ সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা, যাতে কোন ব্যক্তির ব্যক্তিত্বকে অন্যের ব্যক্তিগত সুযোগ-সুবিধার বিসর্জন দিতে না হয়।
◊ সাম্য কয়েক প্রকার- ১. ব্যক্তিগত সাম্য ২. রাজনৈতিক সাম্য ৩. অর্থনৈতিক সাম্য ৪. আইনগত সাম্য ৫. প্রাকৃতিক সাম্য

গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ

◊ গণতন্ত্র থেকে উৎসারিত মূল্যবোধ-ই গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ
◊ অপরের ধর্মমতকে সহ্য করা ধর্মীয় মূল্যবোধ
◊ গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে দরকার- সহনশীলতা
◊ সুশাসন ও মূল্যবোধের অন্যতম উপাদান- আইনের শাসন

ই-গভর্নেল

◊ ই-গভর্নেন্স (Electronic Governance) হলো সেই শাসন যেখানে সরকারি সেবা ও তথ্যসমূহ জনগন সহজে,
স্বচ্ছ উপায়ে পেতে পারে যার ফলে সরকারের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত হ হয় এবং শাসন কার্যে জনগনের সম্পৃক্ততা অনেকাংশে বেড়ে যায়। ফলে সুশাসন নিশ্চিত হয়।
◊ ই-গভর্নেন্স বৈশিষ্ট্য:
* প্রযুক্তি নির্ভর * সময় ও শ্রম বাচায় * নৈর্ব্যত্তিক * সার্বক্ষণিক সেবা
* দুর্নীতি প্রতিরোধ * জনগনের তথ্য পাওয়ার অধিকার নিশ্চিত করা * মানবাধিকার নিশ্চিতকরণ
* শাসন কাজে জনগনের অংশগ্রহণ বৃদ্ধি
◊ ই-গভর্নেন্সের উদ্দেশ্য:
* সরকারি সেবা ও ম্যাসেজ দ্রুত জনগণের নিকট পৌঁছে দেওয়া * অল্প সময়ে অধিক সেবা নিশ্চিত করণ
* তথ্য প্রবাহ অবাধ ও সার্বজনীন করা * স্বচ্ছতা নিশ্চিত করা * জবাবদিহিতা নিশ্চিতকরণ
* দুর্নীর্তি রোধ * শাসনকার্যে জনসম্পৃক্ততা বৃদ্ধি * আমলাতান্ত্রিক জটিলতা নিরসন করা
* সরকারি কার্যক্রম সহজ করা * অর্থনৈতিক উন্নয়ন * সাম্য প্রতিষ্ঠা
* বৈদেশিক সম্পর্ক উন্নয়ন * মানবাধিকার নিশ্চিত করণ
◊ ই-গভর্নেন্সের প্রতিবন্ধকতা:
* রাজনৈতিক প্রতিশ্রুতির অভাব * সরকারের সদিচ্ছার অভাব
* দক্ষ জনশক্তির অভাব * আমলাতান্ত্রিক অনিহা * দুর্বল তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ব্যবস্থা
* অশিক্ষা * ইন্টারনেট সার্ভিসে বেশি ব্যয় * কর্মক্ষেত্রে ICT’র ব্যবহার কম
* অর্থনৈতিক সীমাবদ্ধতা

অধিকার ও কর্তব্য এবং মানবাধিকার

◊ অধিকার (Rights) একটি সামাজিক ধারনা
◊ অধিকার বলতে মানুষের আত্মবিকাশের জন্য কতিপয় সুযোগ সুবিধার দাবিকে বোঝায়। যে দাবির হয় নৈতিক না হয় আইনগত ভিত্তি রয়েছে।
◊ প্রকৃতি অনুসারে অধিকার ২ প্রকার। যথা:
১) নৈতিক অধিকার। যেমন: সদ্বব্যবহার পাবার অধিকার, দুর্বল বা দারিদ্রের সাহায্য পাবার অধিকার, ভিক্ষুকের ভিক্ষা পাওয়ার অধিকার।
২) আইনগত অধিকার। এটি আবার তিন প্রকার
ক) সামাজিক অধিকার: Rights to life , Rights to movement, সম্পত্তি ভোগের অধিকার, চুক্তি করার
অধিকার, মতামত প্রকাশের অধিকার, সংবাদ পত্রের স্বাধীনতার অধিকার, ধর্মীয় অধিকার, ভাষা ও কৃষ্টি সংরক্ষনের
অধিকার, শিক্ষার অধিকার, সম্মান লাভের অধিকার
খ) রাজনৈতিক অধিকার: Rights to residence, Rights to election, Rights to hold public office,
Rights to petition, Rights to protection in abroad, Rights to criticize government.
গ) অর্থনৈতিক অধিকার: Rights to work, Rights to reasonable wages, Rights to rest, Rights
to form trade union.
◊ তথ্য অধিকার আইন পাশ হয় ২০০৯ (অধ্যাদেশ ২০০৮) সালে। তথ্যের অবাধ প্রবাহ এবং নাগরিকের তথ্য অধিকার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে তথ্য কমিশন নামে স্বাধীন স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান সৃষ্টি করা হয়েছে। তথ্য কমিশনে একজন প্রধান তথ্য কমিশনার এবং দুইজন (একজন মহিলা) তথ্য কমিশনার রয়েছে
◊ নাগরিকের কর্তব্য মূলতঃ দু’ধরনের
১. নৈতিক কর্তব্য- মা-বাবা ও শিক্ষককে শ্রদ্ধা, দরিদ্রকে সাহায্য, অন্যায়ের প্রতিবাদ ইত্যাদি
২. আইনগত কর্তব্য রাষ্ট্রের প্রতি আনুগত্য, নিয়মিত কর দেয়া, আইন মেনে চলা, অর্পিত দায়িত্ব পালন ইত্যাদি
◊ এছাড়া নৈতিক ও আইনগত কর্তব্য আবার তিন ধরনের। যথাঃ
১. সামাজিক কর্তব্য: যেমন- Duties to family and neighbours , Proper education of children ,
Duty of social ideal and social values , Public welfare duty
২. রাজনৈতিক কর্তব্য: যেমন- Allegiance to the state, obedience to Law, Rights to open
franchise, Public Service, to build up good governance.
3. অর্থনৈতিক কর্তব্য: Regular Payment of taxes, Participation in production and
development.

মানবাধিকার

◊ মানবাধিকার মানুষের জন্মগত ও প্রকৃতিগত অধিকার
◊ জাতিসংঘের মানবাধিকার সনদ কার্যকর হয় ১৯৪৮ সালের ১০ ডিসেম্বর। এর মোট ধারা ৩০ টি। যেমনঃ মুক্ত চিন্তা, ধর্মীয় স্বাধীনতা, মত প্রকাশের স্বধীনতা, শিক্ষা লাভের অধিকার, গৃহের নিরাপত্তার অধিকার ও সংঘ গঠন করার অধিকার।
◊ বর্তমান বাংলাদেশে যুদ্ধপরাধীদের বিচার হচ্ছে – মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য।

রাজনৈতিক দল, নেতৃত্ব ও সুশাসন

◊ রাজনৈতিক দলের বৈশিষ্ট্য দলীয় সংগঠন, দলীয় সদস্যদের ঐক্যমত, জনমত গঠন, ক্ষমতা লাভের চেষ্টা, নির্বাচনমুখী, ক্ষমতা সংরক্ষণ, ভিন্নন্দল সহিষ্ণুতা, আদর্শগত শিক্ষা, জাতীয় অগ্রগতি ও প্রগতি, দলের মধ্যে নির্বাচন, দলীয় নীতির বাস্তবায়ন, কতিপয় ব্যক্তির সংস্থা, মানবাধিকার রক্ষা, সংসদীয় সরকার অর্থবহ করে তোলা ইত্যাদি।
◊ নেতৃত্ব হচ্ছে ব্যক্তি বা দলের সেই সব গুনাবলি যা কোন জাতি বা সমাজকে লক্ষ্যে পৌঁছাতে উদ্বুদ্ধ করে।
◊ নেতৃত্বের গুনাবলি – সামাজিক সচেতনতা, ব্যক্তিত্ব, সু-স্বাস্থ্য, বুদ্ধিমত্তা, অভিজ্ঞতা, শিক্ষা, সহনশীলতা, উদারতা, দূরদৃষ্টি, কঠোরতা ও কোমলতা, দায়িত্ববোধ, সততা, সুবক্তা।

রাজনৈতিক সংস্কৃতি

◊ রাজনৈতিক সংস্কৃতি হচ্ছে রাজনৈতিক ব্যবস্থার প্রতিচ্ছবি।
◊ রাজনীতি সম্পর্কে নাগরিক যা চায় বা যা ধারণ করে তাই রাজনৈতিক সংস্কৃতি

জনসেবা ও আমলাতন্ত্র

◊ Bureaucracy শব্দটি ফরাসি শব্দ Bureau (দপ্তর) এবং গ্রীক শব্দ Kratein (শাসন) থেকে উদ্ভূত। একটি দেশের সরকারী স্থায়ী কর্মকর্তাদেরই আমলা বলা হয়। আমলাগণ অনির্বাচিত এবং নির্বাচিত সরকার কৃর্তক নিযুক্ত। নির্বাচিত সরকারের সকল কার্যক্রম বাস্তবায়ন করাই আমলা তন্ত্রের কাজ।
◊ আমলাতন্ত্রের বৈশিষ্ট্য – পদসোপান (বাংলাদেশের ক্ষেত্রেঃ সচিব → অতিরিক্ত সচিব যুগ্মসচিব উপসচিব সিনিয়র সহকারী সচিবসহকারী সচিব), দক্ষতা, দায়িত্বশীলতা, অরাজনৈতিক, পক্ষপাতশূন্য, স্থায়িত্ব, পেশাদারিত্ব, জনসেবা, আইন প্রণয়ন ও নীতি নির্ধারনে সহযোগীতা, আইন বাস্তবায়ন।

দেশপ্রেম ও জাতীয়তাবাদ

◊ Nationality শব্দটি গ্রীক শব্দ Natio (জন্ম) থেকে উদ্ভূত। জাতীয়তার উপাদান- বংশগত ঐক্য, ভাষা, ধর্মগত ঐক্য, ভৌগোলিক ঐক্য, ইতিহাস ও ঐতিহ্যগত ঐক্য, রাজনৈতিক অর্থনৈতিক মানসিক ঐক্য
◊ জাতীয়তা নাগরিকের পরিচয় এবং এটি এক ধরনের মানসিক ধারনা বা আধ্যাত্মিক চেতনা। অন্যদিকে, দেশপ্রেম নাগরিকের মানবিক গুণাবালি, দেশপ্রেম দেশের মাটি ও মানুষের প্রতি আবেগ, অনুরাগ ও গভীর মমত্ববোধ

বিবিধ

◊ Civis শব্দের বাংলা অর্থ- নাগরিক।
◊ পৌরনীতির মূলকথা – নাগরিকতা বিষয়ক বিজ্ঞান।
◊ এরিস্টটল এর মতে মানুষ সামাজিক ও রাজনৈতিক জীব।
◊ “মানুষ স্বভাবতই সামাজিক ও রাজনৈতিক জীব এবং সে সমাজে বাস করে না সে হয় পশু না হয় দেবতা” – উক্তিটি এরিস্টটল এর।
◊ পৌরনীতির ইংরেজি প্রতিশব্দ- Civics .
◊ Civics- শব্দের অর্থ – নগররাষ্ট্র।
◊ E. M. White এর মতে পৌরনীতির আলোচ্য বিষয় হলো নাগরিকতার অতীত বর্তমান ও ভবিষ্যত।
◊ Lag শব্দের অর্থ স্থির বা অপরিবর্তনীয়।
◊ ইচ্ছে মত পেশা বাছাই করা ব্যক্তিগত স্বাধীনতা।

Recent General Knowledge in University Admission Tests

Recent General Knowledge in University Admission Tests

আইসিটি (তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি)

◊ মানব সভ্যতা বিকাশের পূর্বশর্ত- শিক্ষা।
◊ বিশ্বগ্রাম ধারণার জনক- হার্বার্ট মার্শাল ম্যাকলুহান।
◊ বিশ্বগ্রাম প্রতিষ্ঠার প্রধান উপকরণ- ৫ টি।
◊ বিশ্বগ্রাম ধারণাটি নির্ভর করে প্রযুক্তি উপর।
◊ বর্তমান সময়ের শিল্পবিপ্লব হলো তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির বিপ্লব।
◊ অভিন্ন মানবগোষ্ঠী হিসেবে পৃথিবীর মানুষকে উপস্থাপনের সুযোগ সৃষ্টি করেছে- তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি।
◊ যোগাযোগ ব্যবস্থাকে ভাগ করা যায়- ২ ভাগে।
◊ অনলাইনে ব্যবসা বাণিজ্যের পথিকৃৎ- ই – কমার্স।
◊ চুক্তিভিত্তিক স্ব-উদ্যোগের কাজকে বলা হয়- ফ্রিল্যান্সিং।
◊ ইন্টারনেটের মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের কাজটিকে বলে ফ্রিল্যান্সিং।
◊ স্মার্টহোম-এর পদ্ধতিকে বলে- হোম অটোমেশন সিস্টেম।
◊ ইন্টারনেটে চলচ্চিত্র দেখার প্রতিষ্ঠান- নেটফ্লিক্স।
◊ ইলেক্ট্রনিক প্রযুক্তি নির্ভর শিক্ষা ব্যবস্থাকে বলা হয়- ই-লার্নিং।
◊ রোগীর যথাযথ চিকিৎসার পূর্বশর্ত- রোগ নির্ণয়।
◊ সংবাদ ও গণমাধ্যমের কার্যক্রমে ভিন্নমাত্রা যোগ করেছে আইসিটি।
◊ উন্নয়নের অন্যতম পূর্বশর্ত- গবেষণা।
◊ The Gutenberg Galaxy: The Making of Typographic Man এবং Understanding Media গ্রন্থ দুটির রচয়িতা- হার্বার্ট মার্শাল ম্যাকলুহান।
◊ যেকোনো ভৌগোলিক দূরত্বে অবস্থিত রোগীকে চিকিৎসা সেবা প্রদানের ব্যবস্থাকে বলে- টেলিমেডিসিন।
◊ কম্পিউটারভিত্তিক বা একাধিক অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠানের একাধিক একাউন্টে অর্থ স্থানান্তর বা বিনিময় প্রক্রিয়াকে বলে EFT.
◊ ভার্চুয়াল রিয়েলিটি শব্দের অর্থ হচ্ছে- কৃত্রিম বাস্তবতা।
◊ কৃত্রিম ত্রিমাত্রিক জগৎ হচ্ছে- ভার্চুয়াল রিয়েলিটি।
◊ কম্পিউটার প্রযুক্তি ও সিমুলেশন তত্ত্বের ওপর প্রতিষ্ঠিত ভার্চুয়াল রিয়েলিটি।
◊ বিমান চালকদের প্রশিক্ষণে ব্যবহৃত হয়- ফ্লাইট সিমুলেশন।
◊ কার্টুন, অ্যাকশন মুভি ও ঐতিহাসিক ছবি তৈরিতে ব্যবহৃত হয় ভার্চুয়াল রিয়েলিটি।
◊ ভার্চুয়াল রিয়েলিটিতে ব্যবহৃত হয়- সিমুলেটর ও মডেলিং সফটওয়্যার।
◊ কম বয়সীদের ক্ষেত্রে ভার্চুয়াল রিয়েলিটির প্রতিক্রিয়া- তীব্র ও দীর্ঘস্থায়ী।
◊ মানুষের বিকল্প হিসেবে বিপজ্জনককাজে ব্যবহৃত হয়- রোবট।
◊ রোবটিক্সের গঠনে বিশেষত্ব রয়েছে- ৩ টি।
◊ প্রথম শিল্প বিপ্লবের মাধ্যম হলো- বাষ্পীয় শক্তি।
◊ নিউরাল নেটের স্তর- ৩ টি।
◊ যন্ত্রকে বুদ্ধি দিয়ে সেটি দিয়ে চিন্তা করানোকে বলে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স।
◊ শীতল তাপমাত্রায় অস্বাভাবিক রোগাক্রান্ত টিস্যু ধ্বংস করার চিকিৎসা পদ্ধতি- ক্রায়োসার্জারি।
◊ চালকবিহীন যুদ্ধবিমানকে বলা হয়- ড্রোন।
◊ দৈহিক কাঠামো ও আচরণগত বৈশিষ্ট্যের দ্বারা নির্দিষ্ট ব্যক্তিকে শনাক্ত করার প্রক্রিয়া বায়োমেট্রিক।
◊ জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এর মাধ্যমে পরিবর্তন করা হয় ডিএনএ।
◊ ন্যানোটেকনোলজির মাধ্যমে তৈরিকৃত বস্তুকে বলে- ন্যানো পার্টিকেল।
◊ জীববিজ্ঞানের বিশাল তথ্য সংগ্রহ ও প্রক্রিয়াকরণে ব্যবহৃত হয় বায়োইনফরমেটিক্স।
◊ নৈতিকতা হচ্ছে এক ধরনের মানদণ্ড বা আচরণ।
◊ কম্পিউটার ইথিক্স ইনস্টিটিউট নির্দেশনা দেয় -১০ টি।
◊ কম্পিউটার ইথিক্স ইনস্টিটিউট ১০ টি নির্দেশনা দেয়- ১৯৯২ সালে।
◊ বাংলাদেশে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন প্রণীত হয়- ২০০৬ সালে।
◊ বাংলাদেশে পর্ণগ্রাফি আইন প্রণীত হয় ২০১২ সালে।
◊ বাংলাদেশে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন প্রণীত হয়- ২০১৮ সালে।
◊ অনাকাঙ্ক্ষিত বা অবাঞ্চিত ই-মেইলকে বলে- স্প্যামিং।
◊ সফটওয়্যার পাইরেসি বন্ধ করার প্রতিষ্ঠান হচ্ছে- BSA।
◊ Business Software Alliance- এর সংক্ষিপ্ত রূপ হচ্ছে – BSA
◊ BSA সূত্রমতে পাইরেটেড সফটওয়্যার হচ্ছে- ৩৬ %।
◊ অন্যের লেখার আংশিক পরিবর্তন করে নিজের নামে চালিয়ে দেওয়াকে বলে প্লেজিয়ারিজম।
◊ প্রযুক্তি মোড়লদের বিরুদ্ধে শুনানিকে বলে- অ্যান্টিট্রাস্ট।
◊ কর ফাঁকি দেয়ায় অ্যাপেল কোম্পানিকে ১৪.৫ বিলিয়ন ইউরোপ ও জরিমানা করা হয় ২০১৬ সালে।
◊ বর্তমান যুগ হচ্ছে – তথ্য প্রযুক্তি যুগ।
◊ বিজ্ঞানের বহুমাত্রিক অগ্রগতিকে ত্বরান্বিত করছে- তথ্য প্রযুক্তির প্রয়োগ।
◊ এটিএম বুথ থেকে টাকা উত্তোলনে ব্যবহৃত হয় – স্মার্ট কার্ড।
◊ আজকাল উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থায় ব্যবহৃত হয় তথ্য প্রযুক্তি।
◊ ঝুঁকিপূর্ণ ও প্রতিকুল পরিবেশে কম্পিউটার নিয়ন্ত্রিত যন্ত্র হচ্ছে রোবট।
◊ নতুন আবিষ্কৃত ওষুধ সংগ্রহ ও ব্যবহারে সক্ষমতা এনেছে- তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি।
◊ যোগাযোগ ব্যবস্থায় আইসিটির অবদান- ইন্টারনেট, ই-কমার্স, ই-মেইল।
◊ অত্যধিক কম্পিউটার ব্যবহারের স্বাস্থ্যগত সমস্যা মাথা ও হাত ব্যাথ্যা, ঘাড় ও পীঠের সমস্যা।
◊ একটি দেশের জীবনযাত্রার মানোন্নয়নকে বলে- অর্থনৈতিক উন্নয়ন।
◊ কম্পিউটার ও স্যাটেলাইট প্রযুক্তিকে কাজে লাগাচ্ছে উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশ।
◊ সরকারী আমলাতন্ত্র হ্রাস করে- ই-গর্ভনেন্স।
◊ ই-গভর্নেন্স এর পূর্ণরূপ হচ্ছে- ইলেকট্রনিক গভর্নেন্স।
◊ World Economic Forum- এর উন্নয়ণ সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান- ৩৪ তম।
◊ ২০১৯ সালের তথ্য মতে বাংলাদেশে রেজিস্টার্ড সফটওয়্যার কোম্পানি রয়েছে- ৮০০ টি।
◊ লক্ষ লক্ষ বেকার যুবক-যুবতীর কর্মসংস্থান করে দিয়েছে কম্পিউটার প্রযুক্তি।
◊ বর্তমান বিশ্বে আইসিটি প্রফেশনাল দরকার প্রায় ৬ মিলিয়ন।
◊ যোগাযোগ প্রক্রিয়ার পরিধি ব্যাপক ও সুবিশাল হওয়ার কারণ ইন্টারনেট উদ্ভাবন।
◊ কমিউনিকেশন প্রক্রিয়ায় ক্যামেরা , মাইক্রোফোন ও কম্পিউটার কী-বোর্ড হচ্ছে- সোর্স।
◊ যোগাযোগ বা কমিউনিকেশন একটি সহজাত প্রক্রিয়া।
◊ ব্যান্ডউইথ -এর একক হচ্ছে- bps.
◊ ব্যান্ডউইথ -এর উপর নির্ভরশীল- ইন্টারনেট স্পিড।
◊ ভিডিও কনফারেন্সিং করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যান্ডউইথ = 1 Mbps.
◊ বিটের বিন্যাসের উপর ভিত্তি করে ডেটা ট্রান্সমিশন- দুই প্রকার।
◊ বিরতিহীন ডেটা ট্রান্সমিশন পদ্ধতি হচ্ছে- সিরিয়াল ট্রান্সমিশন।
◊ ডেটা ট্রান্সমিশন মোড- ৩ প্রকার ও ওয়াকি-টকি, ফ্যাক্স, এস.এম.এস ইত্যাদি হচ্ছে- হাফ-ডুপ্লেক্স মোড।
◊ টেলিফোন, মোবাইল ফোন ও কম্পিউটার নেটওয়ার্ক হচ্ছে ফুল-ডুপ্লেক্স মোড।
◊ রেডিও, টেলিভিশন হচ্ছে- ব্রডকাস্ট মোড।
◊ হাফ-ডুপ্লেক্স ও ফুল-ডুপ্লেক্স উভয়ই হচ্ছে- মাল্টিকাস্ট মোড।
◊ ভিডিও কনফারেন্সিং ও চ্যাটিং হচ্ছে- মাল্টিকাস্ট মোড।
◊ ডেটা কমিউনিকেশন মাধ্যমকে বলা হয়- চ্যানেল।
◊ তার বা ক্যাবল মাধ্যম হলো- গাইডেড মিডিয়া।
◊ রেডিও ওয়েভ, মাইক্রোওয়েভ ও ইনফ্রারেড হচ্ছে আনগাইডেড মিডিয়া।
◊ ব্লু-টুথ, ওয়াই-ফাই, ওয়াইম্যাক্স ইত্যাদি হচ্ছে মাইক্রোওয়েভ প্রযুক্তি।
◊ টুইস্টেড পেয়ার ক্যাবলে থাকে- চার জোড়া তার।
◊ বর্তমানে ফাইবার অপটিক ক্যাবলে আলোর তরঙ্গ দৈর্ঘ্য ব্যবহৃত হয়- 1500nm।
◊ রেডিওওয়েভ -এর ইলেকট্রোম্যাগনেটিক স্পেকট্রাম হচ্ছে- 3 KHz – 300GHz.
◊ মাইক্রোওয়েভ এর ইলেকট্রোম্যাগনেটিক স্পেকট্রাম হচ্ছে- 1 GHz -100GHz.
◊ মাইক্রোওয়েভ যোগাযোগ- দুই প্রকার।
◊ কো-এক্সিয়াল ক্যাবল- দুই প্রকার।
◊ 100 BASE – 2 নামে পরিচিত থিননেট।
◊ 100 BASE – 5 নামে পরিচিত- থিকনেট।
◊ ভূপৃষ্ঠ থেকে ৩৪০০ কি.মি ঊর্ধ্বাকাশে থাকে- জিওস্টেশনারি স্যাটেলাইট।
◊ বাংলাদেশের জিওস্টেশনারি সাটেলাইট হলো- বঙ্গবন্ধু -১।
◊ IoT এর পূর্ণরূপ হচ্ছে- Internet of Things
◊ ব্লুটুথ -এর IEEE standard হচ্ছে- 802.15.
◊ ব্লুটুথ -এর ফ্রিকোয়েন্সি হচ্ছে- 2.45GHz.
◊ ব্লুটুথ নেটওয়ার্ককে বলা হয়- পিকোনেট।
◊ একগুলো পিকোনেট মিলে গঠিত হয় স্ক্যাটারনেট
◊ DSL এর পূর্ণরূপ হচ্ছে- Digital Subscriber Line.
◊ Worldwide Interoperability for Microwave Access- এর সংক্ষিপ্ত রূপ হচ্ছে- WiMax.
◊ WiMax- এর প্রধান অংশ হচ্ছে দুটি।
◊ Wi-Fi- এর IEEE standard হচ্ছে- 802.11.
◊ Wi-Fi- এর পূর্ণ ফ্রিকায়েন্সি রেঞ্জ হচ্ছে- 2.4-5GHz.
◊ WiMax- এর IEEE standard হচ্ছে- 802.16.
◊ WiMax- এর ফ্রিকোয়েন্সি রেঞ্জ হচ্ছে- 2-66GHz.
◊ প্রথম মোবাইল ফোন ব্যবহার করে মার্কিন সামরিক বাহিনী।
◊ প্রাথমিক পর্যায়ে মোবাইল ফোনের কার্যক্ষমতা ছিল খুবই কম।
◊ প্রথম প্রজন্মের মোবাইল ফোনে ব্যবহৃত হতো- অ্যানালগ & সিস্টেম।
◊ 2G মোবাইল ফোনের স্ট্যান্ডার্ড হচ্ছে- GSM ও CDMA.
◊ ডিজিটাল সেলুলার নেটওয়ার্ক বলা হয়- 2G কে।
◊ Global system for Mobile Communications- এর সংক্ষিপ্ত রূপ হচ্ছে- GSM .
◊ Code Division Multiple Access- এর সংক্ষিপ্ত রূপ হচ্ছে- CDMA .
◊ ইন্টারনেট, ই-কমার্স ও মোবাইল ব্যাংকিং চালু হয়- তৃতীয় প্রজন্মে।
◊ ৩য় প্রজন্মে ডেটা ট্রান্সমিশনে ব্যবহৃত হয় প্যাকেট সুইচিং।
◊ 4G গতি 3G’র চেয়ে ৫০ গুণ বেশি।
◊ বেজ-এর ওপর ভিত্তিক করে পজিশনাল সংখ্যা পদ্ধতি- ৪ প্রকার।
◊ ডিজিটাল ইলেকট্রনিক্সে ভোল্টেজ লেভেল ব্যবহার করা হয় দুইটি।
◊ ইন্টারনেট প্রটোকলভিত্তিক নেটওয়ার্ক চালু হয়- ৪ র্থ প্রজন্মে।
◊ wwww নামে পরিচিত- 5G.
◊ ৫-জি প্রথম প্রদর্শিত/চালু হয় দক্ষিণ কোরিয়ায়।
◊ ৫-জি ২০১৮ সালে চালু হয়- অলিম্পিক গেমস-এ।
◊ জালের মতো বিস্তৃত বুঝাতে ব্যবহৃত হয় নেটওয়ার্ক শব্দটি।
◊ পৃথিবীর সবচেয়ে বড় WAN এর উদাহরণ হলো- ইন্টারনেট।
◊ পাবলিক নেটওয়ার্কের উদাহরণ হচ্ছে- WAN .
◊ ডিজিটাল সংকেতকে অ্যানালগ সংকেতে রূপান্তরকে বলা হয় মডুলেশন।
◊ ডিজিটাল সার্কিটের উপযোগী সংখ্যা পদ্ধতি- বাইনারি।
◊ Campus Area Network এর সংক্ষিপ্ত রূপ হচ্ছে – CAN.
◊ অনেকগুলো LAN এর সমন্বয়ে গঠিত হয়- CAN.
◊ ডেটা ফিল্টারিং করতে পারে- রাউটার ও গেটওয়ে।
◊ প্রতিটি কম্পিউটার ডেটা ট্রান্সমিশনে সমান গুরুত্ব পায়- রিং টপালেজিতে।
◊ একই প্রটোকলভুক্ত দুই বা ততোধিক নেটওয়ার্ক যুক্ত করতে পারে- রাউটার।
◊ ‘অতি বুদ্ধিমান ব্ৰিজ’ হিসেবে পরিচিত রাউটার।
◊ ভিন্নধর্মী প্রটোকলবিশিষ্ট নেটওয়ার্কের মধ্যে সংযোগ স্থাপন করে গেটওয়ে।
◊ ক্লাউড কম্পিউটিং প্রধানত- ৩ প্রকার।
◊ জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত ক্লাউডকে বলে- পাবলিক ক্লাউড।
◊ সভ্যতার ইতিহাসের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে সম্পর্কিত সংখ্যার ইতিহাস।
◊ আমাদের দৈনন্দিন জীবনে প্রতিনিয়ত ব্যবহৃত হয় সংখ্যা।
◊ প্রাচীন কালের গণনায় ব্যবহার হতো – প্রতীক বা চিহ্ন।
◊ ষাট ভিত্তিক সংখ্যা পদ্ধতি ব্যবহৃত হতো- ব্যবিলনীয় সভ্যতায়
◊ গ্রীকদের সংখ্যা পদ্ধতি ছিল – দশ ভিত্তিক।
◊ গণিতের যুগান্তকারী আবিষ্কার হলো- শূন্য
◊ খ্রিষ্টীয় শাসকেরা শয়তানের রূপ মনে করতো- শূন্যকে।
◊ শূনের ধারণা প্রথম দেন- ভারতীয়রা।
◊ ইউরোপের দশমিক সংখ্যা ছড়িয়ে পড়ে- আরবদের মাধ্যমে।
◊ দশ ভিত্তিক সংখ্যা পদ্ধতি গড়ে উঠার কারণ- হাতের দশ আঙ্গুল।
◊ মিশরীর সংখ্যা ব্যবস্থা ছিল- ১০ ভিত্তিক।
◊ সংখ্যা প্রকাশের ক্ষুদ্রতম প্রতীক হলো- অঙ্ক।
◊ সংখ্যা গণনার পদ্ধতি হলো- সংখ্যা পদ্ধতি।
◊ সংখ্যা পদ্ধতি প্রধানত দুই প্রকার।
◊ সংখ্যা প্রকাশ করার ক্ষুদ্রতম প্রতীক- অঙ্ক।
◊ পজিশনাল সংখ্যা পদ্ধতি- দশমিক, বাইনারি, অক্টাল, হেক্সাডেসিমেল।
◊ বেজ -এর ওপর ভিত্তিক করে পজিশনাল সংখ্যা পদ্ধতি- ৪ প্রকার।
◊ ডিজিটাল ইলেকট্রনিক্সে ভোল্টেজ লেভেল ব্যবহার করা হয় দুইটি।
◊ ডিজিটাল সার্কিটের উপযোগী সংখ্যা পদ্ধতি- বাইনারি।
◊ বাইনারি সংখ্যা পদ্ধতির প্রতীক হলো- 0,1.
◊ অক্টাল সংখ্যায় ৭ এর পরের সংখ্যা- ১০।
◊ এক বাইট প্রকাশ করার জন্য অক্টাল সংখ্যা প্রয়োজন- ৩ টি।
◊ তিন বিটের বাইনারি সংখ্যা দিয়ে গঠিত হয়- অক্টাল।
◊ হেক্সাডেসিমেল সংখ্যার সর্বশেষ মৌলিক চিহ্ন – F
◊ ডেটা ফিল্টারিং করতে পারে না- হাব ও সুইচ।
◊ চার বিট বাইনারি সংখ্যার সমন্বয়ে গঠিত হয়- হেক্সাডেসিমেল সংখ্যা।
◊ এক বাইট প্রকাশ করার জন্য হেক্সাডেসিমেল সংখ্যা প্রয়োজন ২ টি।
◊ ডিজিটাল ইলেকট্রনিক্সের ভিত্তি বুলিয়ান এলজেবরা।
◊ মৌলিক গেইট- ৩ প্রকার।
◊ বুলিয়ান এলজেবরায় প্রক্রিয়া ৩ টি।
◊ বুলিয়ান যোগকে বলা হয়- লজিক্যাল অর অপারেশন।
◊ ইনভার্টার গেইট বলা হয় – NOT গেইটকে।
◊ সর্বজনীন গেইট হলো- NOR ও NAND গেইট।
◊ ইনপুট ও আউটপুট একই থাকে- বাফার গেইটে।
◊ ইন্টিগ্রেটেড সার্কিট হলো- এনকোডার ও ডিকোডার।
◊ এনকোডার 2n ইনপুট থেকে আউটপুট প্রদান করে- n টি।
◊ ডিকোডার হলো- এনকোডারের বিপরীত।
◊ প্যারালাল লোড রেজিস্টার তৈরিতে ব্যবহৃত হয় – SR ফ্লিপফ্লপ।
◊ ফ্লিপ-ফ্লপের তৈরি ডিজিটাল বর্তনীকে বলে- রেজিস্টার।
◊ দুইটি ইনপুট ও একটি ক্যারি যোগ করতে পারে- ফুল অ্যাডার।
◊ যে ডিজিটাল সার্কিট ব্যবহার করে যোগ, বিয়োগ, গুণ ও ভাগের 1 কাজ করা যায় তা হলো- অ্যাডার।
◊ ওয়েবসাইটে যে পেইজটি প্রথম প্রদর্শিত হয় তা হোমপেইজ।
◊ www বা ওয়েব তৈরি করেন- টিম বার্নাস লি।
◊ টিম বার্নার্স-লি ওয়েবের ধারণা দেন- ১৯৮৯ সালে।
◊ ওয়েবসাইট ব্রাউজ করার জন্য যে সকল সফটওয়্যার ব্যবহার করা সেটিই- ওয়েব ব্রাউজার।
◊ টিম বার্নার্স-লি ইন্টারনেট ব্যবহার করে পাঠানো লিখিত তথ্যের নাম দেন- হাইপারটেক্সট।
◊ একাধিক ওয়েবপেইজের সমন্বয়ে গঠিত হয়- ওয়েবসাইট।
◊ HTML-এর পূর্ণরূপ – Hyper Text Markup Language
◊ CSS এর পূর্ণরূপ- Cascading Style Sheet
◊ ক্লায়েন্ট সার্ভারের কাছে যে ডেটা পাঠায় তা রিকোয়েস্ট।
◊ সার্ভার ক্লায়েন্টকে যে জবাব পাঠায় তা রেসপন্স।
◊ ওয়েবসাইটের একক ঠিকানা হচ্ছে URL.
◊ HTTP এর পূর্ণরূপ – Hyper Text Transfer Protocol.
◊ FAQ এর পূর্ণরূপ- Frequently Asked Question.
◊ ভিডিও শেয়ারিং সাইটের প্রতিটি ভিডিও প্রদর্শনের জন্য থাকে একটি পেইজ।
◊ ব্যবহারকারীর কাছে ওয়েবসাইট সুন্দর ও দৃষ্টিনন্দন করতে দরকার ওয়েবপেইজ ডিজাইন।
◊ ওয়েবসাইটের ধরনের উপর নির্ভর করে ওয়েবসাইটের ডিজাইন।
◊ লে-আউট ডিজাইনকে কাগজে-কলমে করাকে বলে ওয়ারফ্রেম।
◊ গ্রাফিক্স ডিজাইন সফটওয়্যার হলো- অ্যাডোবি ইলাস্ট্রেটর, গিম্প।
◊ ওয়েবপেইজ ডিজাইনের পরের ধাপ ডেভেলপমেন্ট।
◊ ওয়েবপেইজ ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্টের পর প্রয়োজন টেস্টিং।
◊ হোমপেইজ হচ্ছে- স্টার্টিং পয়েন্ট।
◊ ফ্রন্ট-এন্ড ও ব্যাক-এন্ডের কাজ জানা ডেভেলপারকে বলে ফুলস্ট্যাক ডেভেলপার।
◊ ওয়েবপেইজ ডিজাইনের অন্যতম প্রধান কাজটি হচ্ছে- লে আউট ডিজাইন।
◊ ওয়েব পেইজের ব্যাক-এন্ড ডেভেলপমেন্টে ব্যবহৃত হয় প্রোগ্রামিং ভাষা, সফটওয়্যার, লাইব্রেরি।
◊ ওয়েবপেইজ ডেভেলপমেন্টের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত ভাষা হচ্ছে HTML.
◊ ইন্টারনেটে ওয়েবসাইট প্রকাশ করাকে বলে- ওয়েবসাইট পাবলিশিং।
◊ ওয়েবসাইটের নির্দিষ্ট ঠিকানাকে বলে- আইপি অ্যাড্রেস।
◊ ওয়েবসাইট পাবলিশ করার জন্য প্রয়োজন পাবলিক আইপি।
◊ ওয়েবসাইট খুঁজতে ব্যবহৃত হয়- ডোমেইন নেম।
◊ ইন্টারনেটে আমরা যে সার্ভার থেকে তথ্য আহরণ করি তাকে বলা হয়- হোস্টিং সার্ভার।
◊ ডোমেইন নেম রেজিস্ট্রেশনের পরবর্তী পদক্ষেপ- ওয়েবসাইট হোস্টিং।
◊ ওয়েবসাইট যে সার্ভারে থাকে তাকে বলে- হোস্টিং সার্ভার।
◊ ডোমেইন নেম হচ্ছে একটি স্বতন্ত্র ঠিকানা।
◊ ওয়েবসাইট হোস্ট করা হয়- সার্ভারে।
◊ ইন্টারনেট সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের নাম- আইএসপি (ISP)।
◊ আইপি অ্যাড্রেসের অনুবাদই হচ্ছে- ডোমেইন নেম।
◊ DNS -এর পূর্ণরূপ- Domain Name System.

Recent General Knowledge in University Admission Tests Part 05

Downlod PDF Now

2020-21 session Exam Qustion Analysis

Part 01Part 02

Genaral Knowledge Update

নোট ০১নোট ০২নোট ০৩নোট ০৪নোট ০৫নোট ০৬

পিডিএফটি যদি আপনাদের উপকারে আসে তাহলে শেয়ার করে আপবার বন্ধুদের পড়তে সহযোগিতা করুন।

Disclaimer: Dear, For your sort, we truly need to repudiate that all informations have been introduced here in this happy are gathered from internet through obvious notification and news sources. As nobody is up above to messes up, so there might be several willing errors past our site. If nobody truly minds one way or the other, excuse us for these unintesional mitakes and let us in on about it through our email: @gmail.com or Facebook: https://www.facebook.com/admissioninfos01/

Connected With Us

new-facebook-find-us-on-facebook.jpg

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here